নারীর টানে ঝুঁকি নিয়ে উত্তাল পদ্মা পাড়ি দিয়ে ঈদ আনন্দ ভাগ করতে গ্রামে ছুটছেন ঘরমুখো মানুষ

Mawa Photo (1)

মো: জাফর মিয়া:,৩ জুলাই ২০১৬ (মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম) : শিমুৃলিয়া- কাওরাকান্দি নৌরুটে উত্তাল পদ্মা পারি দিয়ে প্রিয়জনদের টানে বাড়ী ফেরার মহা উৎসব চলছে।
বৃষ্টি আর পদ্মার প্রচন্ড ঢেউকে উপেক্ষা করে ছুটে চলছে দক্ষিন অঞ্চলের হাজারো মানুষ । টানা ৯ দিনের ছুটির কারনে লৌহজংয়ের শিমুলিয়া-কাওরাকান্দি ও মাঝি কান্দি নৌরুটে যাত্রী ও যানবাহনের তেমন কোন চাপ নেই।

তবে সব ধরনের প্রতিকুলতা মোকাবেলায় যানবাহন পারাপারে নিয়োজিত রয়েছে ছোট বড় ১৭ টি ফেরি। অপরদিকে যাত্রী পারাপারে ৮৭ টি লঞ্চের পাশাপাশি প্রায় ৪ শতাধিক স্টীট বোট। সবদিক থেকে এবারের যাত্রী পারাপারে তেমন কোন চাপে পরতে হচ্ছে না এরুটের নৌ-যানগুলোকে।
ঘাটে যাত্রী বা যানবাহন আসলেই সাথে সাথে পার হতে পারছেন যথা সময়ে। তবে লঞ্চ ও স্টীট বোটে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের অভিযোগ রয়েছে বিস্তর । এখানে ছোট বড় ৮৭ টি লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে সাধারণ যাত্রীদের।

অপরদিক একই অবস্থা ছোট স্টীট বোটেরও ৮-১০ জনের একটি স্টীট বোটে নেয়া হচ্ছে ১৫-১৬ জন অপরদিকে ১৫-১৬ জনে স্টীট বোটের নেয়া হচ্ছে ২২-২৮ জন করে। ফলে চরম ঝুকি নিয়েই পার হতে হচ্ছে যাত্রীদের। এ খানে প্রশাসনের ব্যাপক সদস্য মোতায়েন থাকলেও কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না । এতে করে এককথায় বাদ্ধ হয়েই ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চ ও স্টীট বোটে পার হতে হয় যাত্রীদের।

বরিশাল গামী আলমগীর হোসেন বলেন, প্রতিবছরে তুলনায় এবারের পরিস্থিতি অনেক টা ভালো । তবে নদী উত্তালের কারনে ঝুকি নিয়েই পার হতে হচ্ছে উত্তাল পদ্মা ।

মাদারীপুর গামী খাদিজা বেগম,ময়না বেগমসহ একাধিক মহিলা যাত্রী বলেন, ছোট ছোট ছেলে মেয়েদের নিয়ে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে গ্রামে ছুটে চলা। তাই নদী যতই উত্তল হোক গ্রামে তো যেতেই হবে। তবে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারনে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।
অপরদিকে স্টীট বোটের একাধিক যাত্রীদের সাথে কথা বলে যানাগেছে ছোট বড় সব ধরনের বোটে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করা হচ্ছে ।

অতিরিক্ত যাত্রী বহন করলে পুলিশ কর্মকর্তাদের দিতে হবে বোট প্রতি ৫ শতাধিক টাকা এমন অভিযোগ করে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক স্টীট বোট মালিক ও চালকরা জানান, স্টীট বোট ঘাটে নিয়োজিত জেলার টঙ্গিবাড়ী থানার এ এস আই মোস্তাফিজ ও তার সহযোগি অন্যপুলিশ সদস্যদের বোট প্রতি ৫ শত টাকা হারে দিলেই ১৫-১৬ জনের বোটে ২২-২৮ ও ১০-১২ জনের বোটে ১৫-১৬ জন করে যাত্রী নেয়া যায় । আর পুলিশের দাবী কৃত টাকা না দিলে বোটে যাত্রী উঠানো বন্ধ করে দেয়া হয়।

টাকা নেয়া বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযুক্ত এ এস আই মোস্তাফিজ বলেন, অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনে বাঁধা দেয়া আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারনা চালানো হচ্ছে।

দ্রুত যানবাহন পারাপারে ১৭ টি ছোট বড় ফেরি স্বচল রয়েছে দাবী করে বিআইডাব্লিউটিসির সহকারী ব্যবস্থাপক মোঃ জসিম উদ্দিন বলেন, শিমুলিয়া-কাওরাকান্দি নৌরুটে যানবাহন পারাপারে নেয়া হয়েছে ব্যাপক ব্যবস্থা। এবারের ঈদে যাত্রী বা যানবাহহন পারাপারে কোন ধরনে হয়রানির স্বীকার হতে হবে না বলে তিনি দাবী করেন।
এদিকে বিআইডব্লিউটিএর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী পরিচালক মোঃ শাহদাত হোসেন বলেন, মাওয়ার শিমুলিয়ায় ১ নং শর্তকতা সংকেত রয়েছে । আমরা সে বিষয়টি মাথায় রেখে লঞ্চ পরিচালনা করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here