এক মরণ ফাঁদের নাম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের গজারিয়া উপজেলা

received_918211031638644-e1473446825490

ইমরান ভুঁইয়া আপন: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ (মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম) : ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক যেন এক মরণ ফাঁদ। প্রতিনিয়তই এ মহাসড়কে চলছে সড়ক দুর্ঘটনা নামক মরণ খেলা। এ সড়ক দুর্ঘটনায় কখনো যাচ্ছে প্রাণ বা কখনো হচ্ছে মানুষ চিরপঙ্গু।

কিন্তু মহাসড়ক গুলতে কেন এই মৃত্যু খেলা? একটু লক্ষ্য করলেই দেখা যায়, এসব সড়ক দুর্ঘটনাগুলো ঘটছে কিছু বিশেষ বিশেষ স্থানে এবং নির্দিষ্ট কিছু কারনে। মহাসড়কের পাশে স্কুল-কলেজ, গার্মেন্টস ও মিল কারখানা গুলোর সামনে অনেক স্থানেই ওভার ব্রিজ ও স্পীড ব্রেকার না থাকায় দ্রুতগামী যানবাহন তাদের গতিরোধ করে না, যার ফলে ঝড়ে যায় তাজা প্রাণ। তাছাড়া যানবাহন গুলো বেপরোয়াভাবে চালানও এসব সড়ক দুর্ঘটনার একটি মূল কারন।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অংশের একটি ঝুঁকিপূর্ণ স্থান গজারিয়ার ভবেরচর বাস স্ট্যান্ড। অত্যন্ত ব্যস্ততম এই স্থানে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার লোকজন যাতায়াত করছে। মহাসড়কের রাস্তার দুই পাশেই রয়েছে স্কুল, কলেজ, মসজিদ, হাসপাতাল, শপিংমল, ব্যাংক, সমিতি এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় পন্যদ্রব্যের অসংখ্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। যার ফলে স্থানীয়দের নিত্যপ্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাতে হলেও প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুকি নিয়ে পারাপার হতে হচ্ছে অত্যন্ত ব্যস্ত এই মহাসড়কটি। শুধু তাই নয় ঢাকায় যেতে কিংবা ঢাকা থেকে ফিরতে গাড়ি থেকে নেমেই অনেককেই এই রাস্তা পার হয়ে যেতে হয় গন্তব্যে। যার ফলে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে এখানকার পথচারীরা।

রাতের বেলা, দুর্যোগপুর্ন আবহাওয়া কিংবা শীতের কুয়াশা ঢাকা সকালে দূর থেকে গাড়ির সঠিক অবস্থান বুঝা অনেকটা দুঃসাধ্যকর হয়ে পরে। ফলে প্রতি নিয়ত দুর্ঘটনা বেড়েই চলছে। অকালে ঝরে যাচ্ছে অনেক তাজা প্রান। কেউ বা আবার পঙ্গুত্ব জীবন যাপন করছে এই মরন ফাঁদে পরে। প্রায় প্রতিদিনই পত্রিকার পাতায় কিংবা টিভির শিরোনামে আসছে এ স্থানের কোন না কোন দুর্ঘটনার খবর।

প্রতিনিয়ত এই পথে পারাপার হচ্ছে আশেপাশের প্রায় ২০-২৫ টি গ্রামের লোক জন। পারাপার হচ্ছে স্কুল কলেজের কোমলমতি শিক্ষার্থী। এছাড়াও সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ের চাকুরিজীবী, ব্যবসায়ী, শ্রমীক সহ অশংখ্য শিশু ও নারী-পুরুষ।

সড়ক দুর্ঘটনা আইন তেমন কোঠর না হওয়ায় একটি প্রাণ হরণ করেও খুব একটা শান্তি পাচ্ছে না চালকরা। আইনটি যদি কঠোর হত তাহলে বেপরোয়া যান চালানো থেকে বিরত থাকতো চালকরা। সেদিক বিবেচনা করে উপরোক্ত সমস্যা সমাধান ও দূর্ঘটনা নিরসনে অত্যন্ত দ্রুত ভবেরচর বাস স্ট্যান্ড এলাকায় একটি ফুট ওভার ব্রীজ নির্মান করার জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোরালো দাবী জানাচ্ছে এলাকাবাসী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here