রিকাবীবাজারের প্রিয় ব্যক্তিত্ব:একজন অপ্রকাশিত প্রতিভা আলিম-আল-রশিদ

 

alim-sig01

৩১ ডিসেম্বর ২০১৬ (মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডেস্ক) : আমার কৈশর-যৌবন ও পড়ন্ত বেলার সাথী আলিম আল রশিদ- জিবনের তিনকালের উৎসাহ-প্রেরনা আর পদ-পরিদর্শক আলিম আল রশিদকে জড়িয়ে আছে আমাদের রিকাবী বাজারের সামাজিক,ক্রীড়া ও সাহিত্য-সাংস্কৃতিক অঙ্গন, যাহার পরিস্ফিত,বিকশিত,সমৃদ্ধ করার ক্ষেত্রে আলিম আল রশিদের পরিশ্রম-প্রচেষ্টা-অবদানকে ছোট করে দেখার অবকাশ নেই।

বলা যায় আমার বাড়ীর পাশের বাড়ী কমলাঘাট বন্দরের প্রসিদ্ধ ব্যবসায়ী আবদুল্লাহ বেপারীর পুত্র আঃ রশিদ বেপারীর বাড়ী, সাংস্কৃতিক সেবী আঃ রশিদ বেপারীর পাঁচ পুত্রের মধ্যে চতুর্থ সন্তান আলিম আল রশিদ। এই পরিবারটিকে সাংস্কৃতিক পরিবার বলা চলে, সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বড় হওয়া আলিম আল রশিদ লেখা-লেখিতেই নিজেকে বেশী জড়িয়ে ফেলে, তিনি গল্গ,প্রবন্ধ,কবিতার পাশাপাশি বহু নাটক,গানও লিখেছেন, বহুমুখি প্রতিভার অধিকারী আলিম খেলাধূলা,পাঠাগার প্রতিষ্ঠা, শিক্ষা,সমাজকল্যান বিষয় কাজ করেছেন। রিকাবী বাজার গ্রীন ওয়েল ফেয়ার সেন্টার ক্লাবের পরিচালনা পরিষদের অন্যতম পদে দায়িত্বরত থেকে খেলাধূলার উন্নয়নের পাশাপাশি ক্লাবে পাঠাগার পুনঃগঠন,সেঁলাই প্রশিক্ষন কেন্দ্রস্থাপন, নাটক মঞ্চায়ন, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান,সংকলন প্রকাশে আলিমের উদ্যোগ ও প্রচেষ্টা ছিল প্রশংসনীয়।

স্বাধীনতার পূর্ববর্তী সময় শতদল নামে যে সংকলন প্রকাশ পেয়েছিল তার অন্যতম উদ্দোক্তা ছিল আলিম, স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধে আলিম তার লেখনীর মাধ্যমে যেমন প্রতিবাদী ছিল তেমনী বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহন করেছিল, ১৯৭১ সনের ২৫শে মার্চ পাক হানাদার বাহিনীর গনহত্যার পর এই এলাকায় আগত অসহায় শরনার্থীদের থাকা খাওয়াসহ গন্তব্যস্থলে যাওয়ার ব্যাবস্থা করার বিষয়ও  আলিমসহ আমরা এক সাথে কাজ করেছি।স্বাধীনতার পর কাদামাটি সাহিত্য সংস্কৃতি গোষ্ঠি প্রতিষ্ঠায় আলিমের যেমন অন্যতম অবদান ছিল তেমনী আলিমের নেতৃত্বেই আমরা ভাস্কর সাহিত্য সংস্কৃতি গোষ্টি প্রতিষ্ঠা করি। কিশোর জীবনে যেমন আমরা বর্ষাকালে মাঠে-খালে-নদীতে-মাঠের অথৈ জলে ডিঙ্গি নৌকায় চড়ে আনন্দ ফুর্তিতে মাততাম তেমনী শীতকালে মাঠে-ঢেড়ায় বসে সাড়া শরিল চাদরে ডেকে কখনও আগুন জ্বালিয়ে ঠাকুরমার জুলির গল্গে মেতে উঠতাম, পরবর্তী সময় সে গল্গস্থান নেয় হেনা আইসক্রিম ফ্যাক্টরী সংলগ্ন সম্ভুর চিত্রালয়ে,

এখানে গল্প হতো না, হতো সাহিত্য চর্চা আলোচনায় থাকতো নাটক,সংকলন প্রকাশ,বয়স্কশিক্ষা কেন্দ্র স্থাপন সহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড বিষয়ক। এই সম্ভুর চিত্রালয় থেকেই সকলের সিদ্ধান্তমতে প্রতিষ্টালাভ করে বা জন্ম নেয় ভাস্কর সাহিত্য সংস্কৃতি গোষ্টির,এই নামটিও আলিম নিদ্ধারন করেন-প্রতিষ্ঠালগ্নে সভাপতি করা হয় বিশিষ্ট ব্যাঙ্কার এম.এ.সাত্তার সাহেবকে আর আলিম হন সাধারন সম্পাদক, আমি সহ-সাধারন সম্পাদকের দায়িত্বে নিয়োজিত হই,

সিনিয়র সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলীসহ আমাদের মধ্যে সকলেই যোগ্যতাবলে বিভিন্নপদের দায়িত্বে নিয়োজিত হন। ভাস্করের প্রতিষ্ঠালগ্নে যারা উপষ্ঠিত ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম আলিম আল রশিদ, মোঃ আলী, আমি কামাল আহম্মেদ, সম্ভু নাথ আচার্য, মস্তফা মৃধা,রফিক ভাই,নিজাম,আবুল কাসেম,ইকবাল বাহার, উজ্জল,খান.এ.মজিদ, দিলিপ বাবু,মরন ভাই,মজিবর রহমান সূমন প্রমুখব্যক্তিবর্গ পরবর্তীতে হোসেন মোল্লা,সিরাজ হায়দার,হাবলু,সফি,মাখন,নাছির,সালাইদ্দিন,মোখলেছ অনেকেই ভাস্করে যোগ দেয়।  নাট্য ক্ষেত্রে ভাস্করের অবদানের পিছনে আলিমের প্রচুর অবদান ছিল,

আলিম নাটক লেখতেন আর আমরা অভিনয় করতাম সবচেয়ে বড় কথা হলো আলিম আমাদের লক্ষ্য করেই নাটকের চরিত্র তৈরী করে স্কৃপ তৈরী করতেন, তাতে শিল্পি মনোনিত করতে ও অভিনয় করতে অসুবিধা হতো না। আলিমের উদ্যোগেই ভাস্করের বয়স্কদের ফ্রি-নাইট স্কুল(শিক্ষা কেন্দ্র)নুরপুর স্কুলে খোলা হয়, আমরা শিক্ষকতা করতাম,আমরা দিলিপ বাবুকে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ দেই, আমরা চাঁদা দিয়ে দিলিপ বাবুকে বেতন দিতাম, ভাস্করের উদ্যোগে পুকুরের কচুরী পানাও পরিস্কার করা হয়। আলিমের বোন হাসিনা প্রতিষ্টালগ্ন থেকে ভাস্করের সাথে জড়িত ছিল, ভাস্করের প্রতিষ্টার পিছনে হাসিনার অবদানকে কৃতঞ্জাচিত্রে স্মরন করছি।

আলিম ছিল একজন মেধাবী ছাত্র, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থেকে বি.কম ও জগন্নাথ কলেজ থেকে মাস্টারস্ করেন তবে হিসাব বিঞ্জানে প্রচুর পারদর্শী ছিলেন।

নিঃস্বার্থ- নির্লুভ-নিরঅহংকার, নিরিবিলি কাজ করে যাওয়া এই মানুষটা তার লেখনীর মাধ্যমে সমাজকে দিয়েই যাচ্ছে,এই ৭০ বছর বয়সেও তার ব্যাত্যয় ঘটে নাই,ফেইসবুকে তার সক্রিয় উপস্থিতি আমাদের তাহাই জানান দেয়, নতুন প্রজম্মকে প্রেরনা যোগায়। আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে যে আধাঁর ঘনিয়ে আসছে সেই অন্ধকারকে আলোকময় করতে এই সমাজে বেশী বেশী আলিম জন্ম নিবে এই প্রত্যাসা রেখে লেখাটি সংক্ষিপ্ত করছি,কারন আলিমের সাথে আমার সাংগঠনিক জীবনের ৫০ বছরের যে সম্পর্ক তা তুলে ধরতে গেলে এ্কটি কাব্যগ্রন্থ রচিত হবে।

আলিম দীর্ঘদিন বেঁচে থাক-সমাজ উপকৃত হউক, এই আশাবাদ ব্যাক্ত করে ইতি টানছি।  কামাল আহাম্মদ,ভাস্কর গোষ্টি

kamal ahmed

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here