গোপনে এখনো মুন্সিগঞ্জে অবৈধ কারেন্ট তৈরী হচ্ছে

20525451_1426427024106101_6148304395273762016_n১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম: মুন্সিগঞ্জে এখনো চুপিচুপি অবৈধ কারেন্টজাল তৈরী হচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। খুব গোপনে ও গভীররাতে এই কারেন্ট জাল তৈরী করা হচ্ছে।
মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন অবৈধ কারেন্টজাল তৈরী ব্যবসায়ীদের পুর্ন:বাসনে আল্টিমেটাম বেঁধে দিয়েছিলেন ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এরপর যদি কেউ এই কাজে করে তবে প্রশাসন শক্ত হাতে তা মোকাবেলা করবে বলে হুশিয়ার দেয়।
কিন্তু এই হুশিয়ার উপেক্ষা করে কেউ কেউ খুব গোপনে এই কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

আল্টিমেটার পর গোপনে গভীর রাতে অবৈধ কারেন্ট জাল তৈরির সময় গত জানুয়ারি মাসে ২ ফ্যাক্টরি ধরা পড়েছে। মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ঐ দুটি ফ্যাক্টরির বিরুদ্ধে মুন্সিগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো: ফারুক ময়েদুজ্জামান জানান, ফ্যাক্টরির দুটির বিদ্যুৎ লাইন কেটে দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৮ সালের ৪ জানুয়ারি তারিখে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মুন্সিগঞ্জ আইন প্রয়োগকারী সংস্থাদের নিয়ে রামপাল ইউনিয়নের শাখারী বাজারের রামপাল ফিসিং নেটে অভিযান চালান। সেখান থেকে ১ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করা হয়। এখানে কুদ্দুস মোল্লা, পিতা মৃত-ইদ্রিস মোল্লা, মো: আনিস, পিতা-আব্দুস সালাম ও সুমন হোসেন, পিতা-জামাল হোসেনকে আসামী করে মামলা করা হয়।

অন্যদিকে ২০১৮ সালের ১০ জানুয়ারি তারিখে অনুরূপ অভিযানে পঞ্চসার ইউনিয়নের অমর চাঁন ফিসিং নেটে অভিযান চালিয়ে ২ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করা হয়। এখানে মিলের মালিক সাইদ খোকনসহ অজ্ঞাতনামা কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।
এদিকে অনেকেই অবৈধ কারেন্ট জাল রুপান্তর করে নিয়েছে। আবার অনেকেই এই ব্যবসা বন্ধ করে দিয়েছে। তবে অনেকেই এই জালের মেশিন পলিথিন দিয়ে ডেকে রেখেছেন ভবিষতের আশায়। এই রকম দৃশ্য চোখে পড়ছে এখন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here