তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গজারিয়ায় ৭৫ বছরের এক বৃদ্ধাকে অমানবিক নির্যাতন

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গজারিয়ায় ৭৫ বছরের এক বৃদ্ধাকে অমানবিক নির্যাতনরবিবার, ১ এপ্রিল ২০১৮, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:  গজারিয়ায় তুচ্ছ ঘটনার জেরধরে বিধবা নুরজাহান-৭৫ নামের এক বৃদ্ধাকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিবেশী সিরাজুল ইসলাম ও তার স্ত্রী তাজমহল।

বিধবা বৃদ্ধা নুরজাহান উপজেলার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামের মৃত- মাইজ উদ্দিনের স্ত্রী।

আহত বৃদ্ধা নুরজাহান বিচার পাওয়ার আশায় গ্রাম্য মাতব্বর সহ ধর্ণা দিচ্ছেন বিভিন্ন ব্যাক্তি বর্গের কাছে।

স্থানিয় সুত্র জানায়, গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের শিমুলিয়া গ্রামে বসবাসকারী হত-দরিদ্র বিধবা বৃদ্ধা নুরজাহান তার বাড়ির পাশের নিজ জমিতে গত ২৪শে মার্চ শনিবার সকালে মাটি কাটার সময় একই গ্রামে বসবাসকারী সিরাজুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোসা. তাজমহল মাটি কাটায় বাঁধা দেয়।

পরে অকথ্যভাষায় গালিগালাজ করে বৃদ্ধা নুরজাহানকে কাঠের ডাসা দিয়ে এলোপাতারী পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

এসময় বৃদ্ধা নুরজাহানের আত্মচিৎকারে পার্শ্ববর্তী বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসলে সিরাজুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোসা.তাজমহল চলে যায়।পরে লোকজন আহত অবস্থায় বৃদ্ধা নুরজাহানকে গজারিয়া উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে।

লাঠির আঘাতে বৃদ্ধা নুরজাহানের ডান হাতের কবজি হাড় ভেঙ্গে গেছে বলে জানান কর্তব্যরত চিকিৎস।

ঘটনার পর থেকেই বৃদ্ধা নুরজাহান অসুস্থ্য হয়ে পড়েন এবং সিরাজুল ইসলামের ভয়ে আতঙ্ক গ্রস্থ্য হয়ে পড়লে প্রতিবেশিরা আইনি আশ্রয় নেওয়ার বৃদ্ধাকে গোপনে পরামর্শ দেন।

মারপিটের শিকার বৃদ্ধা নুরজাহান বিচার পাওয়ার আশায় গ্রাম্য মাতব্বর সহ ধর্ণা দিচ্ছেন বিভিন্ন ব্যাক্তিবর্গের কাছে।

নির্যাতনের শিকার বিধবা বৃদ্ধা নুরজাহানের
পাশে দাড়িয়ে সিরাজুল ইসলামের বিচার করবে এমন কেউ কি আছে এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সচেতন মহলে।

ঘটনাটির সংবাদ গজারিয়া শাখা বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল (বামাকা)’র মাধ্যমে জানতে পেরে স্থানিয় সাংবাদিক, ঘটনাস্থলে গেলে ঐ বৃদ্ধা হাউমাউ করে কেদে কেদে উপরে উল্লেখিত তাকে নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছেন সাংবাদিকদের কাছে।

এব্যাপারে অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম ও তার স্ত্রী তাজমহল সাংবাদিকদের সাথে কোন কথা বলতে রাজি না হয়ে , উল্টো বলেছেন ঐ বৃদ্ধা বেশী বারাবাড়ি করলে তাকে এলাকাছাড়া করা হবে।

এই ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছে ভূক্তভোগী নুরজাহান।

তথ্যসূত্র: জুয়েল দেওয়ান

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here