শ্রীনগরে জনবসতি এলাকায় ডক ইয়ার্ড ! হুমকীতে জনস্বাস্থ্য

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

সোমবার, ৬ মে ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

IMG_4375-696x464

শ্রীনগরে জনবসতি এলাকায় ডক ইয়ার্ড নির্মাণ করে একের পর এক জাহাজ নির্মাণ কাজ করায় হুমকীতে পরেছে ওই এলাকার জনস্বাস্থ্য। উপজেলার কামারগাও এলাকার ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদ ও উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র সংলগ্ন জনবসতি এলাকায় ফজলুল হক মেটাল নামে এ ডক ইয়ার্ডটি নির্মাণ করা হয়েছে।

সরেজমিনে জানাযায়, ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনোয়ার হোসেন শাহাদাতের মালিকানাধীন ফজলুল হক মেটাল নামের ওই প্রতিষ্ঠানটি বাঘরা এলাকার মোতালেব নামে এক ব্যক্তি বছরের পর বছর ধরে ডক ইয়ার্ডে জাহাজ নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

কামারগাও এলাকার কাজল গাজী (৫৫), মাফুজ খান আশিক (৪২)সহ একাধীক ব্যক্তি জানায়, প্রায় প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত আশপাশের মানুষকে শুনতে হয় ডক ইয়ার্ডে জাহাজ নির্মান শ্রমিকের হ্যামাড়ের পিটুনি, গ্যাস কাটার দিয়ে লোহা কাটা, ওয়েলডিং ও গ্যানিংমেশিনে মারাত্মক শব্দ।

অনবরত ওয়েলডিংয়ের কাজ চলায় এর রশ্মি অনেক দুর পর্যন্ত ছড়িয়ে এলাকার সাধারণ মানুষের চোখের রেটিনার মারাত্মক ক্ষতি করছে। তবে সবচাইতে মারাত্মক ক্ষতি করছে শব্দদূষণ। মারাত্মক শব্দের কারণে এলাকার সকল বয়সের মানুষ আজ দিশেহারা হয়ে পরেছে। সকল বয়সের মানুষের কাছে এ শব্দ একটি বিরক্তের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বড়রা কোন রকমে শব্দদূষণ সহ্য করতে পারলেও বেশির ভাগ আক্রান্ত হচ্ছে কোমলমতি স্কুল পড়–য়াসহ সকল শ্রেণি পেশার পরিবারের শিশুরা। এছাড়া অতি মাত্রায় শব্দদূষনের কারনে শ্রবণ শক্তি হ্রাস, বধিরতা, হৃদরোগ, মেজাজ খিট খিটে, ব্লাড প্রেসার, ব্রেইন স্ট্রোক, শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা বিঘ্নতে, ঘুমের ব্যাঘাত ঘটা, স্টেজ হরমন বেড়ে গ্যাসটিক আলছারসহ নানা রকম সমস্যা দেখা দিয়েছে।

কখনও কখনও সারা রাত লোহায় হ্যামারের তিব্র শব্দে এক এলাকা থেকে পৌছে যায় অন্য এলাকায়। তীব্র শব্দ কখনও কখনও কম্পিত হয়ে ওঠে মাটি। এলাকার স্কুল ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চলা কালিন সময়েও থেমে থাকেনা জাহাজ নির্মাণ কাজের টুংটাং শব্দ।

এ ছাড়া আশপাশে কেউ অসুস্থ কিংবা কারও মৃত হলেও থেমে থাকেনা নির্মাণ কাজ। এ ক্ষেত্রে দুর্বল হার্টের মানুষ ও শিশুরা পরছে চরম সমস্যায়। যে কোন সময় ঘটতে পারে তাদের কঠিন বিপদ। শব্দ আমাদের কান ও ব্রেইনের মারাত্মক ক্ষতি করে থাকে বলে বিশেষজ্ঞদের অভিমত।

এছাড়া ডক ইয়ার্ডে বৈদ্যতিক সংযোগও রয়েছে ঝুকিপূর্ণ। গত বছর বিদ্যুতের স্পৃষ্টে মারা যায় জাহাজ নির্মাণ শ্রমিক মোবারক ফকির (৩৫) নামে এক ব্যক্তি।

জনবসতি এলাকায় ডক ইয়ার্ড নির্মাণ বিষয়ে মালিক মনোয়ার হোসেন শাহাদাৎ এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পরিবেশ ছাড় পত্রসহ সকল বৈধ কাগজ পত্র রয়েছে তার। জনবসতি এলাকায় ডকইয়ার্ড নির্মাণ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম বলেন, কারও সমস্যা সৃষ্টি কারা যাবেনা। জনগনের সমস্যা সৃষ্টি হলে, অবশ্যই আমরা তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here