উৎকোচ নেওয়ার সময় পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজের শ্রমিকদের ফোরম্যান সাইফুল আটক

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

শুক্রবার, ১০ মে ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

padmaforeman

বালুবাহি বাল্কহেড মালিকের কাছ থেকে উৎকোচ নেওয়ার সময় হাতেনাতে আটক হয়েছেন পদ্মা সেতু নির্মাণ কাজের শ্রমিকদের ফোরম্যান সাইফুল ইসলাম। এ ঘটনায় বুধবার সাইফুল ইসলাম ও তার শ্যালক মো. আতিকের বিরুদ্ধে লৌহজং থানায় চাঁদাবাজি মামলা রুজু হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ মে) বিকেলে পদ্মা সেতু প্রকল্পের মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া প্রান্ত থেকে তাকে আটক করে গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে উৎকোচের ১৫ হাজার টাকা জব্দ করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম(বার) এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মো. জাকির হোসেন নামে একজন বাল্কহেড মালিকের কাছ থেকে মাসিক উৎকোচ গ্রহনের সময় হাতে নাতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের শ্রমিকদের ফোরম্যান সাইফুল ইসলামকে আটক করেন মুন্সীগঞ্জ গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

গত সোমবার জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলমের কাছে বাল্কহেড মালিক জাকির হোসেন ফোরম্যান সাইফুল ইসলাম ও মো. আতিকের বিরুদ্ধে উৎকোচ নেওয়ার লিখিত অভিযোগ করেন। এতে ডিবি পুলিশ মাওয়া এলাকার পদ্মা সেতু প্রকল্পে অভিযান চালায়।

লিখিত অভিযোগে বাল্কহেড মালিক জাকির হোসেন জানান, তিনি পদ্মা সেতু প্রকল্পে আনিসুর রহমান, আনিস-সুমন, রুপালী বাংলা ও সোহাগ নামে পৃথক চারটি বাল্কহেডে করে বালু সরবরাহ করে আসছিল। বালু সরবরাহের শুরুতেই শ্রমিকদের ফোরম্যান সাইফুল ইসলাম ও আতিক তার কাছ থেকে এককালীন ৩ লাখ টাকা উৎকোচ নেয়।

একই সঙ্গে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা করে উৎকোচ নিয়ে আসছে। এছাড়া ওই দুইজন ফোরম্যান তাদের নিয়ন্ত্রনে থাকা ৬০-৭০ জন শ্রমিকের কাছ থেকে প্রতি মাসে এক হাজার টাকা করে উৎকোচ নিয়ে আসছে বলে অভিযোগ রয়েছে। ফোরম্যান সাইফুল ও আতিক সম্পর্কে শ্যালক ও বোন জামাই। তাদের বাড়ি গাইবান্ধায়। তারা দুইজনই চিনা নাগরিকদের সাথে তাদের ভাষায় কথা বলেতে পারে বলে এ সব করে বেরাচ্ছে।

এ দিকে সম্প্রতি র‌্যাব-১১ ৪জনকে পদ্মাসেতুর বিপুল পরিমান কাজের রড ও সরাঞ্জামসহ আটক করা হয়। ঐ সময় সাইলফুল ইসলামকেও আটক করে লৌহজং থানা পুলিশ। তিনদিন জিজ্ঞাসাবাদ করেতাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

বিডি২৪লাইভ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here