মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে প্রতিশ্রুতি দিলেন সিভিল সার্জন

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

বুধবার, ২২ মে ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

Photograph-2

মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের প্রতিশ্রুতি দিলেন মুন্সিগঞ্জ এর সিভিল সার্জন ডাঃ শেখ ফজলে রাব্বি।

স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ মুন্সিগঞ্জ এর সাথে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) এর অনুপ্রেরণায় গঠিত সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), মুন্সিগঞ্জ আজ ২২ মে ২০১৯ বুধবার সকাল ১১.০০টায় সিভিল সার্জন এর কার্যালয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। সনাক সহ-সভাপতি জাহানারা বেগম এর সভাপতিত্বে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় এ প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

সভায় সিভির সার্জন কার্যালয়ের কর্মকর্তা, সনাক, স্বজন এবং ইয়েস সদস্যগণ অংশগ্রহণ করেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাক মুন্সিগঞ্জ এর স্বাস্থ্য বিষয়ক উপ-কমিটির আহবায়ক শহীদ-ই-হাসান তুহিন। তিনি মতবিনিময়ের উদ্দেশ্য বর্ণনা ও হাসপাতালে সেবার মান উন্নয়নে গৃহীত কার্যক্রম তুলে ধরেন এবং বিগত সনাক সভায় হাসপাতালের সেবার যে দুর্বল দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল তা উল্লেখ্য করেন।

বিষয় গুলি হলো-পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার মাত্রা পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি, টয়লেট প্রতিদিন পরিস্কার করা, সকল ওয়ার্ডে রোগীদের সময়মত তিনবেলা খাবার সরবরাহ ও খাবারের মান পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি, নার্সদের সময়মত উপস্থিতি এবং সবাই অফিসিয়াল পোষাক পরিহিত অবস্থায় থাকা, বাথরুম পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা, জরুরী বিভাগে ডাক্তার থাকা, ময়লা আবর্জনার জন্য ডাষ্টবিনের ব্যবহার পূর্বের তুলনায় বৃদ্ধি, হাসপাতালের ফার্মেসিতে কর্তব্যরত কর্মকর্তা উপস্থিতি ইত্যাদি।

দুর্বল দিকগুলো হলো-, নির্দিষ্ট সময়ের বাইরেও মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের প্রবেশ, কিছু কিছু ডাক্তার যথাসময়ে হাসপাতালে উপস্থিত না হওয়া, অন্তঃবিভাগে ঔষধ প্রাপ্তির স্বল্পতা, চক্ষুর ডাক্তার না থাকায় রোগী দেখা ও চক্ষু অপারেশন বন্ধ থাকা, এ্যাম্বোলেন্স সেবার ক্ষেত্রে অতিরিক্ত অর্থ আদায় ইত্যাদি।

পরে মুক্ত আলোচনায় অনুষ্ঠিত হয়। মুক্ত আলোচনায় সভার প্রধান অতিথি হাসপাতালের জেলার সিভিল সার্জন ডাঃ শেখ ফজলে রাব্বি বলেন, মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসক ও জনবলের সংকট রয়েছে। চক্ষু, ইএনটি এবং মেডিসিন বিভাগে কনসালটেন্ট এর পোষ্ট এখনও শূন্য রয়েছে।

কোন নিরাপত্তা প্রহরী নেই, সীমিত সংখ্যক পরিচ্ছন্ন কর্মী রয়েছে। ফলে স্বল্প জনবল নিয়ে চিকিৎসা সেবা দিতে খুবই হিমশিম খেতে হচ্ছে। তারপরও সীমিত জনবল নিয়ে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। অতিরিক্ত ফি আদায়ের ক্ষেত্রে তিনি বলেন, (বহিঃবিভাগের টিকিট,প্যাথলজি টেষ্ট, বেড কেবিন, ড্রেসিং ইনজেকশন পুশ) নিয়ম বর্হিভূত অর্থ আদায় করলে তিনি দোষী ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

চিকিৎসকদের সাথে মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভদের সাক্ষাতের জন্য সময়সূচি নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। সেই সময়সূচি যাতে সবাই মেনে চলে সে ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা প্রদান করবেন তিনি। সনাক এর দাবীর প্রেক্ষিতে তিনি হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটি সক্রিয়করণ ও কর্তব্যরত চিকিৎসকদের ডিউটি রোস্টার প্রদর্শনের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন এবং অভিযোগ নিষ্পত্তির বিষয়ক একটি

কমিটি গঠন করেন। অভিযোগ নিষ্পত্তি কমিটি মাসে ২বার হাসপাতালে স্থাপিত অভিযোগ বাক্স খুলে প্রাপ্ত অভিযোগ নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করা উদ্যোগ নিবেন এবং শীগ্রই ডিজিটাল এক্স-রে মেশিন চালুর ব্যবস্থা করবেন। সভায় সমাপনী বক্তব্যে সনাক মুন্সিগঞ্জ এর সহ-সভাপতি জাহানারা বেগম বলেন,পূর্বের তুলনায় হাসপাতালের সেবার মানোন্নয় হয়েছে।

এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে হবে। তবে কোনো কোনো ক্ষেত্রে চিকিৎসক ও নার্সদের আচরণ সন্তেুাষজনক নয়। টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার মো: আবু তাহের এর সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য আবু সাত্তার মুন্সী, স্বজন সদস্য মো: হোসেন সোহেল, সনাক- টিআইবি, মুন্সিগঞ্জ এর এ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার (অর্থ ও প্রশাসন), মো: শরীফ হোসেন প্রমুখ।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here