সাংবাদিক মাহবুবুল আলম (জন্ম : ৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৬, মৃত্যু : ৭ জুন ২০১৪ )

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

শনিবার, ৮ জুন ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

মাহবুবুল আলমমাহবুবুল আলম ১৯৩৫ খ্রিষ্টাব্দে ৫ ফেব্রুয়ারি মুন্সিগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯৫৭ খ্রিষ্টাব্দে অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস অব পাকিস্তানে তাঁর সাংবাদিকতার শুরু। পরে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সর্ম্পক বিষয়ে পড়াশুনা করেন। ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দে তিনি লন্ডনের কমনওয়েলথ প্রেস ইউনিয়ন থেকে সাংবাদিকতায় ফেলোশীপ লাভ করেন। ১৯৭২ খ্রিষ্টাব্দে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারীর দায়িত্ব পালন করেন।

বিভিন্ন সময়ে তিনি সাপ্তাহিক ডায়ালগ ও নিউ নেশন পত্রিকার সম্পাদক এবং বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বিএসএস) প্রধান সম্পাদক ছিলেন। তিনি ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রেস মিনিস্টার (১৯৮৯-১৯৯২) ছিলেন এবং এর আগে একই দূতাবাসের প্রেস কাউন্সিলর ছিলেন (১৯৭৮-১৯৮০)। লন্ডনে বাংলাদেশ হাইকমিশনে প্রেস কাউন্সিলর হিসেবেও কাজ করেছেন (১৯৭৬-১৯৭৮)। এ ছাড়া তিনি ভুটানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ছিলেন (১৯৮৩-১৯৮৬)। এর আগে ১৯৮০ থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র এবং বহি:প্রচার অনুবিভাগের মহাপরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন।

দীর্ঘ ১৮ বছর তিনি ইংরেজি দৈনিক ইনডিপেনডেন্ট পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। ২০১৩ খ্রিষ্টাব্দে অক্টোবরে তিনি অবসরে যান। সংবাদপত্রের মালিকদের সংগঠন নোয়াবের সাবেক সভাপতি ছিলেন মাহবুবুল আলম।
প্রবীণ সাংবাদিক মাহবুবুল আলম ২০১৪ খ্রিষ্টাব্দে ৭ জুন মারা যান। তিনি একাধিক ইংরেজি দৈনিকের সম্পাদক, কূটনীতিক, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।

বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী এই বরেণ্য সাংবাদিক মাহবুবুল আলমের মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭৯ বছর। তিনি বার্ধক্যজনিত অসুখে ভুগছিলেন অনেকদিন ধরে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন মেয়েদের রেখে যান। তাঁর স্ত্রী ও মেয়েরা বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন৷

স্বাধীনতা-পরবর্তী প্রায় সব সরকারের সময়ে মাহবুবুল আলম গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৬ খ্রিষ্টাব্দে রাজনৈতিক সংকট চলাকালে তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ছিলেন। ওই সময়ে চরম রাজনৈতিক সংকটে ‘সুড়ঙ্গের শেষ প্রান্তে আলো দেখা যাচ্ছে এমন আশাজাগানিয়া মন্তব্য করে তিনি সবার দৃষ্টি কাড়েন৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here