মিরকাদিমের পূর্বপাড়া মসজিদের সভাপতি মেয়র শাহিনের নাম বাদ দেয়াকে কেন্দ্র করে মারামারি

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

শনিবার, ১৫ জুন ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

62514412_384215335529223_3868607614807965696_nমুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার পূর্বপাড়া জামে মসজিদে গতকাল শুক্রবার জুম্মার নামাজ আদায় করতে গিয়ে একই সমাজের দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনার জের ধরে এক ব্যাক্তিকে কাঁচের টুকরো দিয়ে মাথায় কোপানো হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

আহত ব্যাক্তির নাম হচ্ছে মো. রিপন (৪৫)। সে পূর্বপাড়ার রিকাবিবাজার এলাকার মো. আব্দুল হাইয়ের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চলতি বছরের উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের সমর্থকরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

নির্বাচনে বর্তমান মেয়র ও তার লোকজন নৌকার সমর্থক হিসেবে কাজ করে। আর অন্য পক্ষটি স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে।

এ নিয়ে গত কয়েক মাস ধরে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় মেয়র পক্ষের সাথে দ্বন্দ চলছে ওই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে।

পৌর মেয়র পূর্বপাড়ার রিকাবিবাজার মসজিদ কমিটির সভাপতি। তার এ পদ থেকে সড়ানোর জন্য গতকাল শুক্রবার নামাজের আগে প্রতিপক্ষের লোকজন মসজিদে চেচামেচি শুরু করে।

মেয়র পক্ষের সমর্থকরা তাতে বাধা দিলে দুই পক্ষের মধ্যে হট্টগোল বেধে যায়। একপর্যায়ে পুলিশ এসে লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনার পর বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মেয়র পক্ষের সমর্থক রিপনের বাড়িতে গিয়ে হামলা চালিয়ে প্রতিপক্ষের রিপনকে পিটিয়ে আহত করে।

রিপনের চাচা শাহাবুদ্দিন জানান, মসজিদের ভিতর একটি সংঘবদ্ধ দল গালি-গালাজ করে মসজিদের আদব নষ্ট করছিলো। রিপন তাদের মসজিদ থেকে বেড়িয়ে যেতে বলেছিলো। এ কারণে রিপনের বাড়িতে গিয়ে তার উপর অর্তকিত হামলা চালায়।

কাঁচের বড় টুকরা দিয়ে মাথায় কোপ দেয়। এ সময় স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে ওই দলটি পালিয়ে যায়। রিপনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসলে মাথায় ১০ টি সেলাই করা হয়।

পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম শাহিন বলেন, গত উপজেলা নির্বাচনে আমি নৌকার পক্ষে কাজ করি। আওয়ামী লীগের একটি পক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে কাজ করে।

এ কারণে নতুন আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া বিএনপি- জামাতের লোকজন ও আওয়ামী লীগের ওই পক্ষ আমার লোকজনদের উপর যেখানে সেখানে হামলা করেছে।

মসজিদে- মসজিদে, মন্দিরে মন্দিরে সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করছে। আমাকেও বিভিন্ন ভাবে হেও করারা চেষ্টা করছে। বাড়ি বাড়ি গিয়ে নৌকার কর্মিদের পিটিয়ে আহত করছে। যা লজ্জার,ঘৃণার ও দুঃখের ব্যাপার।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার উপপরিদর্শক (এস আই) আব্দুস সালাম বলেন, আহত রিপন হাসপাতালে ভর্তি দেখে এসেছি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here