মুন্সিগঞ্জে বিবদমান দু’পক্ষের সন্ত্রাসে ফের অশান্ত মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন

সব মানুষের সৃজন প্রয়াসী অনলাইন পোর্টাল:

সোমবার, ৮ জুলাই ২০১৯, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

mollakandiমুন্সিগঞ্জে বিবদমান দু’পক্ষের সন্ত্রাসে ফের অশান্ত হয়ে উঠেছে সদর উপজেলার চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন। চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দির বেহেরকান্দি গ্রামে গত শুক্রবার ককটেল তৈরির সময় বিস্টেম্ফারণে ৪ জনের আহত হওয়ার ঘটনাস্থল শনিবার পর্যন্ত পুলিশ শনাক্ত করতে পারেনি।

এখনও পুলিশের তদন্ত অব্যাহত রয়েছে। এদিকে পুলিশ বিস্টেম্ফারণের ঘটনাস্থল শনাক্ত করতে না পারলেও এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত দাবি করে বিবদমান দু’পক্ষই পরস্পরকে দায়ী করছে। এমনকি ককটেল তৈরির সময় বিস্টেম্ফারণে আহতদের নাম, পরিচয় পুলিশ ও সাংবাদিকদের কাছেও সরবরাহ করছে দু’পক্ষই।

এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন নিয়ে সৃষ্ট বিরোধের জেরে দুটি পক্ষ বেশ কিছুদিন ধরে সংঘর্ষ-হামলায় লিপ্ত রয়েছে। গত ২৯ জুন দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরে গত শুক্রবার পর্যন্ত দু’পক্ষের মধ্যে বেশ কয়েকবার হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে শুক্রবার একপক্ষ ককটেল তৈরি করতে গেলে বিস্ম্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সদর থানা পুলিশের একাধিক দল মুন্সিগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মুন্সীকান্দি, বেহেরকান্দি, নোয়াদ্দা ঢালীকান্দি গ্রামসহ পাঁচটি গ্রামে বিস্টেম্ফারণের ঘটনাস্থল শনাক্ত করতে তল্লাশি অভিযান চালিয়েছে।

কিন্তু ভয়ে নারী-পুরুষ সবাই নিশ্চুপ থাকায় ঘটনাস্থল বা কোন বাড়িতে বিস্টেম্ফারণের ঘটনা ঘটেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন সদর থানার এসআই ইব্রাহিম। এদিকে শুক্রবার রাতে ইউপি সদস্য মেজবাহউদ্দিন গ্রামে বিশৃঙ্খলা, হামলা ও সংঘর্ষের সঙ্গে জড়িত থাকায় ৪ সন্ত্রাসীকে আটকের পর পুলিশের কাছে সোর্পদ করেছেন।

পুলিশ ও গ্রামবাসী জানিয়েছে, শুক্রবার বিকেলে ঘটনার তদন্তে গেলে ককটেল তৈরির সময় বিস্টেম্ফারণের ঘটনায় শরীফ, বাবু ওরফে বাবু চোরাসহ ৪ জন আহত হওয়ার তথ্য জানিয়েছে এক পক্ষ। শনিবার দ্বিতীয় দফায় ঘটনাস্থল শনাক্ত করতে তদন্তে গেলে অপরপক্ষ রাজু নামের একজন আহত হওয়ার কথা পুলিশকে জানিয়েছে।

আধিপত্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন নিয়ে সৃষ্ট বিরোধের জের ধরে ২৯ জুন বিকেলে সীমান্তবর্তী পুরাবাজারে দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এর জের ধরে ওইদিন সন্ধ্যায় নোয়াদ্দা ঢালীকান্দি ও মুন্সীকান্দি গ্রামে দু’পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। একপক্ষে নেতৃত্বে ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা ও বিএনপি নেতা উজির আলী এবং অপর পক্ষে নেতৃত্বে ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি সদস্য স্বপন দেওয়ান।

এ ঘটনায় সদর থানায় মামলা হলেও শুক্রবার পর্যন্ত বিচ্ছিন্নভাবে দু’পক্ষের মধ্যে কয়েক দফা হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া দু’পক্ষই এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য ককটেল বিস্টেম্ফারণ ঘটাচ্ছে। পুলিশ জানায়, আধিপত্য নিয়ে মুন্সীকান্দি গ্রামের উজির আলী ও তার সমর্থক এবং একই গ্রামের স্বপন দেওয়ান ও তার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় কিছুদিন শান্ত থাকা মোল্লাকান্দি আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে।

সমকাল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here