শ্রীনগরে জাহিদুল হত্যাকেন্ডর মুল হোতা বান্দরবন থেকে গ্রেপ্তারঃ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি

৬ অক্টোম্বর ২০১৯, রোববার, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

মোঃ রেজাউল করিম রয়েল:

IMG_20191005_221645শ্রীনগরে নিখোঁজের ৫ দিন পর মোঃ জাহিদুল ইসলাম নামের এক যুবকের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধারের ঘটনায় প্রধান আসামী শেখ শওকত (১৯) কে বান্দরবন থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার বিকেলে মুন্সিগঞ্জের জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট রবিউল ইসলামের আদালতে শওকত ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি প্রদান করে।

এর আগে গত ৪ অক্টোবর ভোরে মুন্সিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শ্রীনগর সার্কেল) আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে প্রযুক্তি ব্যবহার করে শ্রীনগর থানার ওসি (তদন্ত) হেলাল উদ্দিন ও ওসি (অপারেশন) কামরুজ্জামান বান্দরবন জেলার আর্মি পাড়া থেকে শওকতকে গ্রেপ্তার করে।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীনগর থানার ওসি (অপারেশন) কামরুজ্জামান জানান, শওকত ইয়াবা ব্যবসার অগ্রীম হিসাবে সে তার প্রতিবেশী ও বন্ধু জাহিদুলকে ৮ হাজার টাকা প্রদান করে। টাকা নিয়ে ইয়াবা না দেওয়ায় জাহিদুলের সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়।

এর সূত্রধরে শওকত কৌশলে তার সহযোগীদের নিয়ে জাহিদুলকে গলায় ওরণা পেচিয়ে হত্যা করে লাশ জঙ্গলে ফেলে গা ঢাকা দেয়। শওকত ওই এলাকার শেখ সিরাজের ছেলে।

স্থানীয়রা জানায়, পূর্ব বাঘড়া এলাকার মৃত মল্লুক চাঁনের ছেলে ও শাহাবুদ্দিন মাষ্টার হত্যা মামলার ৪ বছর সাজা ভোগকারী আসামী রুবেলের ভাই মোঃ জাহিদুল (১৯) গত ২১ সেপ্টেম্বর নিখোঁজ হয়। নিখোঁজের পরদিন জাহিদুলের বোন বাদী হয়ে শ্রীনগর থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন।

২৫ সেপ্টেম্বর সকালে স্থানীয়রা জাহিদুলের বাড়ি থেকে একটু দুরে লাশটি দেখে পুলিশে খবর দেয়। লাশ উদ্ধারের ২ দিন শ্রীনগর থানার এসআই আবুল কালাম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্য মোঃ ইউনুচ আলী জানান, হত্যাকান্ডে শওকত ছাড়াও তার আরো ২ সহযোগী অংশ নেয়। তাদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ছবিঃ জাহিদুলের ঘারে মাথা রাখা খুনি শওকত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here