যোগিনীঘাট

গোলাম আশরাফ খান উজ্জল: পৌরসভার ৮ নং ওয়ার্ডের যোগিনীঘাট একটি ঐতিহাসিক স্থান। প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র, ধলেশ্বরী ও ইছামতীর সঙ্গম স্থান এই যোগিনীঘাট। প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র বর্তমান কথিত কালিদাস সাগরের তীরে এই পূণ্য স্নানঘাট। এই ঘাটের সংস্কার ও নদীটি খননের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে।

নবম শতকের তৃতীয় দশকে ৯৩০ খ্রিষ্টাদে মহারাজা ধীরাজ, পরমেশ্বর রাজা শ্রীচন্দ্রদেবের সময় বৌদ্ধরা এ ঘাটটি নির্মান করেন। হেলেনা কাব্যগ্রন্ত হতে জানাযায়, এ ঘাটে কোন এক রাজার নন্দিনী বরদা সুন্দরী মতান্তরে বরদাযোগিনী প্রথম গোসল বা স্নান করেন। চৈত্র মাসের মাঝামাঝিতে এখানে ব্রক্মপুত্র অষ্টমী স্নান হয়। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার প্রত্যেকটি মৌজাম্যাপে কালীদাস সাগর,

রজত রেখা, কাটাখালী খাল, মহেশপুরের খালকে প্রাচীন ব্রহ্মপুত্র খাল হিসেবে দেখানো হয়েছে। গতকাল যোগিনীঘাট এলাকায় সরেজমিন গিয়ে দেখাগেছে ২০০২-২০০৩ সালে সালে নির্মাণ করা একটি ঘাট রয়েছে। যা সংষ্কার করা অতি প্রয়োজন। নদীটি শুকিয়ে গেছে। চৈত্র মাসে স্নান করতে পারেনা মুন্সীগঞ্জের পূণ্য স্নানকারীরা। এ বিষয় রামপ্রসাদ মল্লিক (৮০) বলেন

এখানে হাজার বছর ধরে অষ্টমী স্নান হয়। এখানে স্নান উপলক্ষে বড় মেলা হতো। এখন নদীতে পানি নাই। এখন নদীতে পানি নাই। নদীটি খননের দরকার। শুকলাল হালদার (৬৫), জীবন চন্দ্র (৪৫) ও কমল মল্লিক বলেন, যদি জেলা প্রশাসক ও পৌরসভা আমাদের ঘাটটি সংষ্কার করে দেন এবং খালটি খনন করেন তা হলে জনগন এবং পূণার্থীরা উপকৃত হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here