মুন্সীগঞ্জের সন্তান অভিনেতা আব্দুস সাত্তারের দ্বিতীয় মৃত্যুবাষির্কী নিরবে কেটে গেলো!

2sattarনিজস্ব প্রতিবেদক:

চলচ্চিত্র ও টিভি নাটকের বর্ষীয়ান অভিনেতা আব্দুস সাত্তার এর দ্বিতীয় মৃত্যুবাষির্কী ছিলো ২০ আগস্ট। ২০১৮ সালের ২০ আগস্ট শনিবার দিবাগত রাত ২টায় তিনি ইন্তেকাল করেন। তার এই দ্বিতীয় মৃত্যু বাষির্কীটি নিরবেই গেটে গেলো।

তার স্মরণে এই মৃত্যু বাষির্কীতে কাউকে কোন আয়োজন করতে দেখা যায়নি। জানানো হয়নি কোন শ্রদ্ধাঞ্জলি। গুণীদের কদর এভাবেই কমে যেতে থাকে সময়ের সাথে সাথে। এক সময়ে হারিয়ে যায় সব কিছু।

মৃত্যুর আগের সময়টাতে এ অভিনেতা বার্ধক্যজনিত বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন বলে জানা গেছে। সেই সময়টাতে তার নিজ এলাকার পাশাপাশি বাদ জোহর দীর্ঘদিনের কর্মস্থল এফডিসিতে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর শাহজাহানপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

আব্দুস সাত্তার বেশ কিছু চলচ্চিত্রে অভিনয় করার পাশাপাশি একটি চলচ্চিত্র প্রযোজনা ও পরিচালনাও করেছিলেন। ছবিটির নাম ‘রাখে আল্লাহ মারে কে’। এছাড়া তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে রয়েছে ‘ফয়সালা’, ‘চাচা-ভাতিজা’ প্রভৃতি।

3চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আজীবন সদস্য ছিলেন তিনি। উল্লেখযোগ্যসংখ্যক টিভি নাটকে অভিনয় করেছেন আব্দুস সাত্তার। এসবের মধ্যে রয়েছে ‘সকাল সন্ধ্যা, ‘মাটির কোলে’ প্রভৃতি। অভিনয়ের পাশাপাশি চিত্রনাট্য রচনা, প্রযোজনা, পরিচালনা সবই করেছেন তিনি। বিটিভির ঈদের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘আনন্দমেলা’য় তার উপস্থিতি মানে ছিল বিরাট আনন্দময় ব্যাপার।

জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’তে নিয়মিত অভিনয় করতেন তিনি। নব্বই দশকে বিটিভির আরেক জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘শুভেচ্ছা’য় ভুলভুল ভাই নামে একটি মজার চরিত্রে অভিনয় করতেন। তার সেই অভিনয় দেখে মঞ্চে দর্শকরা হেসে গড়াগড়ি খেত।

অভিনেতা আব্দুস সাত্তারের মৃত্যুতে শোক জানিয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান বলেন, ভালো একজন অভিনয় শিল্পীকে হারালাম আমরা। তার গ্রামের বাড়ি হচ্ছে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভাস্থ জমিদার পাড়ায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here