টঙ্গীবাড়ীতে ডিসিআরে কাটাকাটি: অত:পর লীজের জমিতে পাকা ভবন

নিজস্ব প্রতিবেদক: টঙ্গীবাড়ী উপজেলার বেতকা ইউনিয়নের বেতকা মৌজার ভিপি কেস নং ৫২/৭১ জমিতে জাল জালিয়াতির মাধ্যমে দক্ষিণ বেতকার মৃত আমির হোসেনের পুত্র আশ্রাফ হোসেন বাদল পাকা দোতলা ভবন নির্মাণ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে এ ধরণের ভবন নির্মাণের জন্য কোন ধরণের সরকারি অনুমতি পত্র নেই বলে অভিযোগ উঠেছে।

আর এই পরিপেক্ষিতে সেই স্থান থেকে পাকা ভবন কেন অপসারণ করা হবে না এ মর্মে তার অনুকূলে টঙ্গীবাড়ী ভূমি অফিস পত্র প্রেরণ করেছে দীর্ঘ কয়েক মাস আগেই। কিন্তু রহস্যজনক কারণে এ বিষয়টি বর্তমানেও আলোর মুখ দেখেনি এখনো। তাই এ বিষয়টি নিয়ে নানা ধরণের কথাবার্তা শোনা যাচ্ছে সেখানে। অভিযোগের জমির পরিমাণ হচ্ছে ০ দশমিক ৯০৫০ একর। আর এর খতিয়ান হচ্ছে এস.এ ৪১৩। দাগ নং হচ্ছে ৭৬৩। জমির শ্রেণি হচ্ছে চাষি জমি।

জানা যায়, ২০১৬ সালের ১১ ডিসেম্বর তারিখে ভিপি কেইস নং ৫২/৭১ ডিসিআর এর রশিদ নং ০১৮৪৬৪ এ বইয়ের পাতায় কাটাকাটি করে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দক্ষিণ বেতকা গ্রামের মৃত আমির হোসেনের পুত্র আশ্রাফ হোসেন বাদল এর অর্ন্তভূক্ত করা হয় বলে অভিযোগ সূত্রে জানা যায়। জাল জালিয়াতের মাধ্যমে অর্ন্তভূক্ত করা নামের সুবিধা নিয়ে ২০১৯ সালের ২৩ জুন ঐ ব্যক্তি তার অনুকূলে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা ভূমি অফিস থেকে নতুন ডিসিআর কাটতে সক্ষম হন।

পূর্বের ডিসিআরের রশিদের মূল কপিতে নাম ছিল আব্দুল মোতালেবের নাম। তার নামটি কাটাকাটি করে বাদ দেখিয়ে সুবিধা নেয়ার চেষ্টা করছেন আশ্রাফ হোসেন বাদল। এর পূর্বে এ বিষয়ে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বেতকা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তার স্মারক নং বে.ইউ.ভূ.অ./২০১৬-৯৯ এর ২০১৬ সালের ৬ ডিসেম্বর তারিখে তার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। এইসব বিষয়ে

আশ্রাফ হোসেন বাদলের বিরুদ্ধে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার দক্ষিণ বেতকা গ্রামের আব্দুল মোতালেব শেখের পুত্র মো: আলমগীর শেখ মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন।

এই প্রেক্ষিতে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ তারিখে মো: আশ্রাফ হোসেন বাদলকে নোটিশ প্রদান করেন। সেই নোটিশে তিন দিনের মধ্যে দোতলা ভবন সরিয়ে নেয়া এবং কেন তার লীজ বাতিল হবে না এ মর্মে কারণ দর্শানার নোটিশ জারি করা হয়। কিন্তু দীর্ঘ মাস অতিবাহিত হলেও আলোচিত দোতলা ভবন যেমনটি আগে ছিল, তেমনটিই আছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here