সিরাজদিখানে করলা-ঝিঙ্গের জমিতে আগুন!

সিরাজদিখানে করলা-ঝিঙ্গের জমিতে আগুন!তুষার আহাম্মেদ:

সিরাজদিখানে করলা ও ঝিঙ্গের জমিতে আগুন লাগিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এই আগুনে প্রায় ২লাখ টাকার ক্ষতি সাধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত সোমবার সকাল ১১টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামানন্দ গ্রামের হাবিবুল্লাহ ভান্ডারির ফসলী জমিতে আগুন লাগানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

বুধবার সরেজমিনে দেখা যায়, সিরাজদিখান উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের রামানন্দ গ্রামের হাবিবুল্লাহ ভান্ডারির জমির করল্লা ও ঝিঙ্গে আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। জমি জুড়ে শুধু ছাই আর ছাই পড়ে রয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘ প্রায় ৪০বছর ধরে উপজেলার রামানন্দ মৌজার জমিটি ওহাব খন্দকার ও তার ছেলেরা ভোগ দখল করে আসছে। তবে কয়েকমাস ধরে জমিটি আব্দুল ফকিরের ছেলে জমিটি দখল করার জন্য আব্দুল ওহাব মেম্বারের ছেলে হাবিবুল্লাহ ভান্ডারিরকে ভয় ভিতি দেখিয়ে আসছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

মো. হাবিবুল্লাহ ভান্ডারি বলেন, আমরা এই জমিটি প্রায় ৪০ বছর ধরে ভোগ দখল করে আসছি। গত সোমবার সকালে আব্দুল ফকিরের ছেলে আসানুল্লাহ (৬০), কামাল হোসেন (৪৫), মো. শহিজালাল (৪২), সফিকুল ইসলাম (৩৫), লেহাজুদ্দিন (২৭), সুমনসহ ৪০/৪৫ জনের একটি দল আমাদের জমিতে এসে জমির ফসল পুড়িয়ে ফেলেছে। আমরা জমিটি ১০ বছর ধরে বন্ধক দিয়ে রেখেছি।

জমি বন্ধক নেয়া চাষী মো.আওলাদ বলেন, আমি এই জমিটি বন্ধক নিয়ে বিভিন্ন ফসল চাষ করে আসছি। এ বছর আমি এই জমিতে ৬ হাজার টাকা কেজি দরে করল্লা ধানা ও ৪ হাজার টাকা দরে ঝিঙ্গে ক্রয় করে রোপণ করেছি। এ জমিতে আমার ৭০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে।

আমি এবছর এই জমির ফসল প্রায় ২লাখ টাকা বিক্রি করতে পারতাম। এখন আমার সব শেষ হয়ে গেল।
এ বিষয়ে আব্দুল ফকিরের ছেকে কামাল হোসেনের মুঠোফোন একাধিকবার ফোন দেওয়া হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ এস. এস. জালাল উদ্দিন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্তের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নিব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here