টঙ্গীবাড়ীতে আলদীর মজিবুরের অভিযোগ দায়ের

MN Logo-small copy

নিজস্ব প্রতিবেদক: টঙ্গীবাড়ি থানায় বাড়িঘর ভাংচুর ও চাঁদাবাজীর মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছেন পশ্চিম আলদীর মজিবুর দেওয়ান। এই নিয়ে একটি পক্ষ আতংকের মধ্যে দিনযাপন করছেন বলে শোনা যাচ্ছে।

জানা যায়, অরুন তালুকদার, রাজা তালুকদার ও নজিব তালুকদের জমির উপর দিয়ে মজিবর দেওয়ান বাড়িতে যাওয়ার রাস্তা নির্মাণ করছেন নিজ অর্থায়নে।

জমির ভাগ ভাটোয়ারা না হওয়া পর্যন্ত রাস্তা নিতে দেওয়া হবে না এ বিষয়ে রাজা তালুকদার ইতোমধ্যে দীঘিরপাড় ফাঁড়িতে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এরপর দীঘিরপাড় ফাঁড়ির আইসি ইনস্পেক্টর জুয়েল ও তদন্ত কর্মকর্তা এস.আই বিজয় কয়েক দফা বিষয়টি তদন্ত করেন এবং উভয় পক্ষকে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। ভাগ ভাটোয়ারা না হওয়া পর্যন্ত কোন রাস্তার কাজ হবে না বলে সিদ্ধান্ত দেন।

কিন্তু হঠাৎ করে রাজা তালুকদার এস.আই বিজয়ের কাছে অভিযোগ করেন ভেকু দিয়ে রাস্তার করা হচ্ছে। তখন ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার জাকির হোসেনকে দায়িত্ব দেয়া হয় বিষয়টির। যাতে রাস্তার কোন কাজ মজিবর আর না করে। এস.আই বিজয়ের নির্দেশে ভেকুর মালিক নয়নকে কাজ করতে নিষেধ করেন মেম্বার জাকির।

এ সময় জাকিরের সাথে তার দুইজন আত্মীয় যায়। পরবর্তীতে চাঁদাবাজীর একটি মিথ্যা ঘটনা রটনা করেন মজিবুর। সেই ঘটনা জিজ্ঞাসা করার জন্য কাঠাদিয়া শিমুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান, জাকির মেম্বার ও আরো কয়েকজন মিলে জিজ্ঞাসা করলে মজিরুরের মা চাঁদাবাজীর মামলা করবেন বলে হুমকি প্রদান করে।

এর পরে তারা চলে আসলে তাদের বাড়ি ঘর কে বা করা ভাংচুর করেছে বলে দীঘিরপাড় পুলিশ ফাঁড়ির আইসির কাছে অভিযোগ করেন। পরবর্তীতে ইউপি চেয়ারম্যান, প্যানেল চেয়ারম্যান, মেম্বার ও এস.আই বিজয়সহ ৬-৭ জনের একটি টিম মজিবুরের বাড়িতে ভাংচুরের বিষয়টির তদন্ত করেন। সেখানে জাকির মেম্বারের সাথে যাওয়া কোন লোকজনই ভাংচুর করেনি বলে শোনা যাচ্ছে। এমনকি তাদের বাড়িতেও যায়নি।

এ বিষয়ে প্যানেল চেয়ারম্যান ও ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার ও ইউনয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মজিবুর রহমান জানান, ঘরের ভাংচুরের বিষয় জানতে গেলে তার কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। ৩-৪টি ঘরের মহিলাদের জিজ্ঞাসা করেও এর কোন সদুত্তর পাওয়া যায়নি।

মজিবুর দেওয়ান জানান, জাকির মেম্বার তার আত্মীয় স্বজন নিয়ে এসে রাস্তা নির্মাণে বাঁধা প্রদান করে। তার বেকু আছে সেই বেকু দিয়ে কাজ না করানোর কারণে সে আমার কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। তবে বাড়ি ঘর ভাংচুর যে জাকির মেম্বার ও তার লোকজন করেনি তা তিনি স্বীকার করেছেন।

জাকির মেম্বার বলেন, সামনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আমার নির্বাচন বানচাল করার জন্য মজিবুর দেওয়ান আমার ও আমার আত্মীয় স্বজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে থানায় অভিযোগ করেছে।

আমাকে ঐ রাস্তার কাজ যাতে বন্ধ থাকে এজন্য দীঘিরপাড় ফাঁড়ির এস.আই বিজয় দায়িত্ব দিয়েছেন রাজা তালুকদারের সাথে ভাগ ভাটোয়ারার মিমাংসা না হওয়া পর্যন্ত রাস্তা নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখার জন্য।

পুলিশের কাছে রাজা তালুকদার অভিযোগ করলে আমি রাকিব ও কালামকে নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই এবং দেখি যে ভেকু দিয়ে রাস্তার কাজ করতেছে। পরে ভেকুর মালিক নয়নকে কাজ বন্ধ রাখতে বলি।

এখানে আর কোন কিছুই হয়নি। কিন্তু মজিবুর আমার ও আমার আত্মীয় স্বজনদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মো: নুর হোসেন বেপারী জানান, ৩ এপ্রিল সকাল সাড়ে দশটায় ইছব বেপারী ফোন দিয়ে জানায় মজিবুর দেওয়ান বাড়িঘর ভাংচুর করছে রাকিব ও কালাম রাজার নেতৃত্বে জাকির মেম্বারের শেল্টারে।

পরবর্তীতে আমরা ৬-৭ জন ও এস.আই বিজয়কে নিয়ে মজিবুরের বাড়িতে যাই এবং তার জানালার থাই গ্লাসের এক পাট ভাংচুর করা। ঘটনাটির কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here