মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে জোর করে ইন্টারনেইট সংযোগ দেয়ার অভিযোগ

169763780_472110684038102_7470319018310364364_nনিজস্ব প্রতিবেদক:

মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে জোর করে অবৈধ ভাবে ইন্টারনেইট সংযোগ দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার একাধিক এলাকায় জোর করে অবৈধ ভাবে ইন্টারনেইট সংযোগ দেয়া হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে।

এলাকাগুলো হচ্ছে মিরাপাড়া, মস্তান বাজার, গোলাপ বাগ, দুর্গাবাড়ী, গোয়লঘুন্নি। যিনি এ তান্ডবে মেতে উঠেছেন তিনি হচ্ছেন মিরাপাড়া এলাকার মৃত রমিজ উদ্দিনের ছেলে খোকন। এ ধরণের কর্মকান্ডে জড়িত হওয়ার পিছনে তার খুঁটির জোর কোথায়? তা নিয়ে এখানে প্রশ্ন উঠেছে।

এদিকে টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরী কমিশন (বিটিআরসি) এর অনুমোদনহীন ও সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে এই ইন্টারনেইট ব্যবসায়ী জোর করে পূর্বের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে তার অবৈধ সংযোগ নিতে বাধ্য করছেন বলে এমন অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এছাড়াও তিনি চলমান সেঞ্চুরী লিংক নেটওয়ার্কের সংযোগের বিচ্ছিন্ন করে সেই তারও মেশিন দখল করে গ্রাহকদের তার অবৈধ সংযোগ দিয়ে যাচ্ছেন বলেও জানা গেছে।

ইতোমধ্যে অভিযুক্ত খোকনের বিরুদ্ধ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও মুন্সীগঞ্জ সদর থানাসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন সেঞ্চুরী লিংক নেটওয়ার্কের মালিক মিন্টু মিয়া।

জানা গেছে চলমান সেঞ্চুরী লিংক নেটওয়ার্কের মিরকাদিম পৌর এলাকার বিভিন্ন স্থানের মেশিন ও সংযোগ তার দখল করে গ্রাহকদের জোর পূর্বক অনুমোদনহীন অবৈধ ইন্টারনেইট সংযোগ দিয়ে যাচ্ছে। সংযোগ নিতে অশিকার করলে গ্রাহকদের নানা ভাবে হুমকি দিয়ে সংযোগ স্থাপনে বাধ্য করা হচ্ছে।

গোয়ালঘুন্নির এলাকার ইন্টারনেইট গ্রাহক সিরাজ আহম্মেদ বলেন, আমারসহ আমাদের বাড়ীর চলমান ১০টি সংযোগ রাতের আঁধারে জোর পূর্বক বিচ্ছিন্ন করে খোকন তার সংযোগ স্থাপন করছেন। বার বার সংযোগ স্থাপন করতে নিষেধ করলেও কোন কর্ণপাত না করে উল্টো হুমকি দিয়ে যাচ্ছে।

একই এলাকার অপর গ্রাহক নিরব ও মোক্তার হোসেনসহ একাধিক গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন, গতদুই দিন যাবত আমাদের ইন্টারনেইট লাইন নেই। এতে করে অনেক সমস্যায় পরতে হচ্ছে। শুনেছি খোকন নামের কোন এক ব্যক্তি সেঞ্চুরী মালিককে ইন্টারনেইট ব্যবসা করতে দিবে না। তাই ওনাদের সংযোগ কেটে দিয়ে আমাদের বাধ্য করছে খোকন তার লাইন সংযোগ নিতে।

খোকন জোর করে মেশিন ও সংযোগ তার দখল করে গ্রাহকদের জিম্মি করে সংযোগ দিচ্ছে জানিয়ে সেঞ্চুরী লিংক নেটওয়ার্কের মালিক মিন্টু মিয়া বলেন, খোকন পেশি শক্তি ব্যবহার করে আমাদের সংযোগের তার এবং মেশিন দখল করে গ্রাহকদের নিজের সংযোগ নিতে বাধ্য করছে। আমি এর সুষ্টু বিচার চেয়ে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছি।

169912714_263341112006960_455822950159396738_nঅনুমোদন আছে দাবী করে অভিযুক্ত খোকন বলেন, যারা আগের সংযোগ কৃত লাইন চালাবে না আমরা তাদের নতুন করে সংযোগ দিচ্ছি। সেটা আমাদের নিজস্ব তার ও মেশিনের মাধ্যমে। জোর করে লাইন দখল বা সংযোগ দেয়ার অভিযোগটি সত্য নয় বলেও তিনি জানান।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, জোর করে লাইন কেটে দেয়া বা মেশিন তার দখল করে সংযোগ স্থাপনের এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here