মুন্সীগঞ্জে বাঘাইকান্দিতে ককটেল বিস্ফোরণ! আতঙ্কে গ্রামবাসী

20210413_122121মো: তুষার আহাম্মেদ:

মুন্সীগঞ্জে আলুর বস্তা প্রতি ৫ টাকা চাঁদা দাবীর প্রতিবাদ করায় সন্ত্রাসীরা ট্রলি গাড়ির শ্রমিকদের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ঘর দুয়ার কুপিয়েছে। এ সময় সন্ত্রাসীদের বাঁধা দিতে গেলে মহিলা পুরুষসহ কয়েকজনকে মারধর করে আহত করা হয়।

20210413_122256আজ মঙ্গলবার সকালের দিকে মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউনিয়নের বাঘাইকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে সন্ত্রাসীরা গত সোমবার দুপুরের দিকে এ গ্রামের দুটি বাড়িতে ককটেল নিক্ষেপ করে বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে। এ ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনা পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

20210413_122552জানা গেছে, চরকেওয়ার ইউনিয়নের বাঘাইকান্দি এলাকার স্থানীয় ইউপি সদস্য গজনবী গ্রুপের অন্যতম সদস্য ফারুক খলিফা, কামাল খলিফা, আনোয়ার ও বিপ্লব খলিফার নেতৃত্বে ২০/২৫ জনের একটি গ্রুপ বাঘাইকান্দি গ্রামের বেপারি বাড়িতে আর্তকিত হামলা চালিয়ে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়।

ঐ সময় সন্ত্রীরা চরকেওয়ার ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কবীর বেপারি ও স্থানীয় শ্রমিকলীগের নেতা সুমন বেপারির বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।

20210413_122306এদিকে একই জের ধরে গতকাল মঙ্গলবার সকালের দিকে ঐ সন্ত্রাসীরা দ্বিতীয় দফায় বেপারি বাড়ি এলাকায় হামলা চালিয়ে কয়েকটি বাড়ি কুপিয়ে তছনছ করে। ওই সময় মহিলা পুরুষ বাঁধা দিতে এগিয়ে গেলে সন্ত্রীরা তাদের মারধর করে আহত করে। আহতরা হলেন, দিলা বেপারি (২৮) খবির বেপারি (৩০) কবির বেপারি ও তার মাকে মারধর করা হয়।

অপরদিকে খলিফা বাড়ির লোকজন প্রতিপক্ষ বেপারি বাড়ির এলাকাতে এসে দফায় দফায় হামলা চালাচ্ছে এমন পরিস্থিতিতে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে এখানে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে কোনো মুর্হুতে রক্তক্ষয়ি সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে বলে জানান স্থানীয় লোকজন।

এদিকে যুবলীগ নেতা কবীর বেপারি এ ব্যাপারে বলেন,এখন মাঠের আলু হিমাগারে নেয়া হচ্ছে। মাঠ থেকে ট্রলি গাড়িতে করে আলুর বস্তা হিমাগারে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। খলিফা বাড়ির এলাকার ফারুক খলিফা, কামাল খলিফা, আনোয়ার ও বিপ্লব গ্রুপ আলুর বস্তা প্রতি ৫ টাকা চাঁদা দাবী করলে ট্রলি গাড়ির চালক ও মালিক তা দিতে অস্বীকৃতি জানান।

এতে ঐ চাঁদাবাজরা ক্ষিপ্ত হয়ে বেপারি বাড়ির এলাকার ট্রলি গাড়ির শ্রমিকদের বাড়িতে হামলা করে ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। তিনি অভিযোগ করে বলেন, স্থানীয় ইউপি সদস্য গজনবি ও তার ভাই এ ককটেল হামলা ও চাঁদাবাজির নেতৃত্ব দিচ্ছে।

অপরদিকে এ অভিযোগের ব্যাপারে ইউপির সদস্য গজনবী জানান, বেপারি বাড়ির লোকেরা আমাদের ব্যাপারে মিথ্যা ঘটনা রটাচ্ছে।ককটেল হামলা ও লোকজনকে মারধর, চাঁদাদাবীর কোনো ঘটনার সঙ্গে আমি ও আমরা কেউ জড়িত না।

এদিকে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আবু বকর সিদ্দিক বলেন, আমরা ককটেল বিস্ফোণের খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে যায়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। যদি কেউ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here