টঙ্গীবাড়ীতে ভূমিহীনদের সরকারি জমি দখলের অভিযোগ

received_152441496909915টঙ্গীবাড়ীর বেশনাল গ্রামে ভূমিহীনদের সরকারি জমি দখলে অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কিন্তু আদালতে মামলা চলমান থাকা সত্বেও দখলকৃত জমিতে জোরপূর্বক মাটি ভরাট করা হচ্ছে।

কামারখাড়া ইউনিয়নের বেশনাল গ্রামের মৃৃত নেকমত আলী বেপারীর দুই ছেলে আলী হোসেন বেপারী (৭০) ও দুহাই বেপারী (৬০)। তারা দুই শতাশং করে মোট ৪ শতাংশ জমি সরকারের কাছ হতে বন্দোবস্ত পায়। কিন্তু সেই জমিতে জোরপূর্বক বালু দিয়ে ভরাট করছে একই গ্রামের মৃত আবুল সৈয়ালের ছেলে মোহন সৈয়াল গংরা।

জমির মালিক বৃদ্ধ আলী হোসেন বেপারী ও তার ভাই দুহাই বেপারী বলেন, আমাদের কোন জমিজমা ছিলো না। প্রায় ২৮ বছর আগে বাংলাদেশ সরকার আমাদের দুই ভাইকে দুই শতাংশ করে মোট ৪ শতাংশ জমি ৯৯ বছরের জন্য স্থায়ী বন্দোবস্ত দেয়।
সেই জমিতে দীর্ঘদিন যাবত আমরা বসবাস করছি। কিন্তু আমাদের গ্রামের প্রভাবশালী মোহন সৈয়াল জোড় করে বালি ফেলে সরকারের দেওয়া জমিটি দখল করে নিচ্ছে। এ নিয়ে আগে আমরা আদালতে মামলা করি। এখনো এই মামলাটি আদালতে চলমান আছে।

পরে গত ৫ জুন তারিখ থেকে মোহন সৈয়াল গভীর রাতে চুপিসারে আমাদের জমিতে ড্রেজার স্থাপন করে বালু দিয়ে ভরাট করে। আমরা বাধা দিলে মোহন সৈয়াল আমাদের হুমকি ধামকি প্রদান করে। পরে আমার ভাই দুহাই বেপারী বাধ্য হয়ে দিঘিরপাড় তদন্ত কেন্দ্রে অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মোহন সৈয়াল জানান, এই জমি আমি কিনেছি। তাই ভরাট করছি। আদালতে মামলা এখনো নিষ্পত্তি হয়নি সেই বিবাদমান জমিতে আপনি বালু দিয়ে ভরাট করতে পারেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন অল্প কিছু বালু তাদের জমিতে গেছে। আমি বাঁশ কিনেছি সেখানে বেড়া দিয়ে দেব।

কামারখাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন হাওলাদার জানান, বিষয়টি বর্তমান দখলদাররা আমাকে জানিয়েছে। আমি মোহন সৈয়ালকে ড্রেজার বন্ধ রাখতে বলেছি।

টঙ্গীবাড়ী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) পারভীন খানম জানান, খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here