শ্রীনগরে আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপি’র সাবেক সভাপতির নের্তৃত্বে হামলা

224001361_778356029503028_4486272896988875963_nশ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি:

শ্রীনগর উপজেলার রাঢ়িখাল ইউনিয়নের আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ বেপারী ও বিএনপির সাবেক সভাপতি কফিলউদ্দিন বেপারীর নের্তৃত্বে হামলার ঘটনায় পিতা ও পুত্র আহত হয়েছে।

হামলার শিকার রনি ও খোকন মুন্সী হামলাকারীদের সম্পর্কে জামাতা ও বিয়াই হয়। পারিবারিক কোলাহলের জেরে গত রোববার সন্ধ্যার দিকে রাঢ়িখাল ইউনিয়নের উত্তর বালাশুর বৌ-বাজার জামাতার বাড়িতে এই হামলা চালায় শশুররা।

এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। স্থানীয়রা জানায়, ৮/৯ বছর পূর্বে বালাশুর এলাকার চান্দু বেপারী কন্যা সাথী (২৬) সাথে একই এলাকার খোকন মুন্সীর পুত্র রনির (৩০) পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তাদের স্বামী স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কোলাহল চলে আসছিল। কয়েক বছর পূবে রনি বিদেশ চলে যায়।

প্রায় এক মাস যাবত ছুটিতে রনি বাড়িতে আসলে দুই জনের মধ্যে কোলাহল বেড়ে যায়। মেয়ে সাথীর আক্তারের নালিশের সূত্র ধরে হানিফ বেপারী, কফিলউদ্দিন বেপারী ও চান্দু বেপারীসহ ১৫/২০ জনের একটি গ্রæপ রনির বাড়িতে হামলা চালায়।

225654810_963803627746457_2355717938468023468_n এতে রনিসহ তার পিতা খোকন মুন্সী আহত হন। শশুরদের এমন কর্মকান্ডের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

ভূক্তভোগী খোকন মুন্সী বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমার বিয়াইরা এভাবে হামলা না করলেও পারতেন। রনি কিছু দিন পূর্বে সৌদি থেকে ছুটিতে বাড়িতে আসে। এ ঘটনায় উপায় না পেয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে শ্রীনগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করি। বিএনপি নেতা কফিলউদ্দিন বেপারীর কাছে এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

রাঢ়িখাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ বেপারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পারিবারিক কোলাহলের কারণ জানতে রনির বাড়িতে গেলে তাকে না পেয়ে আমরা রাস্তায় অপেক্ষা করছিলাম।

এ সময় মোটরসাইকেল চালিয়ে এসে আমাদের এক জনের পায়ের ওপরে চাকা উঠিয়ে দিলে বাইকটি শ্লিপ খেয়ে পরে গিয়ে রনি আহত হয়। কোন হামলার ঘটনা হয়নি। এ ব্যাপারে অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা ও শ্রীনগর

থানার এসআই আল-আমিন জানান, অভিযোগ হাতে পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here