মুন্সীগঞ্জে উজ্জ্বলাকে দুটি টিকা দেয়ার অভিযোগ ! (ভিডিওসহ)

মুন্সীগঞ্জে উজ্জ্বলাকে দুটি টিকা দেয়ার অভিযোগ !মোহাম্মদ সেলিম:

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মাকহাটি জি সি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আজ শনিবার ৭ আগস্ট একজন নারীকে একই দিনে করোনা ভ্যাকসিন সিনোফার্মার দুটি টিকা দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। টিকা নেয়া নারীর নাম হচ্ছে উজ্জ্বলা রানী দাস।

IMG_0314তাঁর স্বামীর নাম হচ্ছে নির্মল দাস। তাঁর বাড়ি হচ্ছে পশ্চিম মাকহাটি গ্রামে। উজ্জ্বলা রানী দাসের বয়স ষাটের উর্ধ্বে। একই সাথে দুটি টিকা নেয়ায় এ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা উৎকণ্ঠার মধ্যে দিনযাপন করছেন।

IMG_0311উজ্জ্বলার পরিবারের সন্তানরা দাবি করছেন তাদের মাকে দুটি টিকা দেয়া হয়েছে। আর টিকা প্রদানকারীরা দাবি করছেন তারা তাকে একটিই টিকা দিয়েছেন। আর নিয়ে এখানে ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

সিভিল সার্জন ডা: আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ধরণের ঘটনা এখানে ঘটে থাকলে ভয়ের কোন কারণ নেই। ঐ পরিবার যেন উৎকণ্ঠায় না থাকেন।

জানা যায়, এ কেন্দ্রে আজ ৬শ’ ব্যক্তিকে টিকা দেয়ার জন্য ৩শ’ ভায়েল দেয়া হয়। এক ভায়েলতে দুইজন ব্যাক্তিকে টিকা দেয়ার নিয়ম রয়েছে। উজ্জ্বলা রানী দাস এ কেন্দ্রে টিকা দেয়ার জন্য সকাল ৭টার দিকে লাইনে দাঁড়ান। ৮টার দিকে এখানে পর্যায়ক্রমে টিকা দেয়া শুরু হয়।

উজ্জ্বলা রানী দাস বলেন, প্রথমে দুইজনকে ভিতরে প্রবেশ করানো হয়। এরপর উজ্জ্বলা রানী দাসসহ পাঁচজনকে ভিতরে প্রবেশ করানো হয়। তাকে বসিয়ে রেখে প্রথমে একজন টিকা দেন। এরপর কিছুক্ষণ পর আবার তাকে আরো একটি হাতের বামপাশে টিকা দেয়া হয়। এরপর তিনি বাড়িতে ফিরে এসে একাধিক টিকার

বিষয়টি বাড়ির লোকজনদের জানান। তখন তার এক ছেলে সুমন দাস কেন্দ্রে ছুটে যান। সেখানকার দায়িত্বরত স্বাস্থ্য কর্মী শিখা পালকে এ বিষয়টি জানান। তখন শিখা পাল সুমনকে বলেন উজ্জ্বলা রানী দাসকে একটি টিকা দেয়া হয়েছে।

কেন্দ্রের দায়িত্বরত স্বাস্থ্য কর্মী শিখা পাল বলেন, তাকে এ কেন্দ্রে টিকা দেন মাসুদ পারভেজ। এখানে তাকে তারা একটিই টিকা দিয়েছেন। কোনভাবে তাকে দুটি টিকা দেয়া হয়নি।

উজ্জ্বলা রানী দাস বলেন তাকে তাঁরা আজ দুটি টিকা দিয়েছেন।
সুমন দাস বলেন মাকে দুটি টিকা দেয়া হয়েছে। আমরা এখন মাকে নিয়ে ভয়ে আছি।

টিকা প্রদানকারী মাসুদ পারভেজ দাবি করেন উজ্জ্বলা রানী দাসকে একবারই তাকে টিকা প্রদান করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here