শ্রীনগরে লিমাকে হত্যার নেপথ্যে পরকীয়া: ঘাতককে গ্রেফতারে অভিযান

সোমবার, সেপ্টেম্বর ২০১৮, মুন্সিগঞ্জ নিউজ ডটকম:

শ্রীনগরে যুবতীর বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধারের ঘটনায় রক্তেরপরকীয়ার কারণে শ্রীনগরের বাড়ৈখালী বাজারে চাঁন মার্কেটের দর্জিঘর নামের একটি কাপড়ের দোকানের ভেতরে তরুণী লিমা আক্তার লিমুকে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় লিটন, সুজনসহ ৪ জনকে আটকের পর জিজ্ঞাসাবাদে পরকীয়ার ঘটনার তথ্য উঠে আসে। দোকান মালিক খোকন মিয়ার সঙ্গেই লিমা আক্তার লিমুর পরকীয়ার সম্পর্ক থাকার তথ্যসহ নানা তথ্য আটককৃতরা জানিয়েছে।

ঘটনার পর থেকে পলাতক থাকা দোকান মালিক ও পরকীয়া প্রেমিক খোকনকে গ্রেফতার ও মামলার তদন্তের স্বার্থে কিছু তথ্য গোপন রাখার কৌশল নিয়েছে পুলিশ। তবে হত্যাকাণ্ডের আগে লিমা আক্তারকে ধর্ষণ করা হয়েছে কি-না তা ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে পুলিশ জানিয়েছে। স্থানীয় এলাকাবাসী মনে করছে, লিমা আক্তার লিমুকে পরকীয়ার ফাঁদে ফেলে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দিতেই খোকন মিয়া তার কাপড়ের দোকানের ভেতরেই তাকে হত্যা করেছে।

শ্রীনগর থানার ওসি মো. ইউনুচ আলী জানান, গত ২৮ আগস্ট কেনাকাটার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন বাড়ৈখালী গ্রামের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে লিমা আক্তার লিমু। বাজারের চাঁন মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় দর্জিঘর নামের কাপড়ের দোকানে গিয়েছিলেন তিনি। পরকীয়ার জের ধরে ওই দোকান মালিক খোকন মিয়ার সঙ্গে লিমুর বিরোধ দেখা দিয়েছিল।

ওই সময় দোকানে অন্য কেউ না থাকার সুযোগে দোকান মালিক বিবাহিত খোকন মিয়া লিমুকে দোকানের ভেতরেই হত্যার পর ক্রেতাদের বসার স্থান হিসেবে তৈরি বড় আকৃতির বাক্সের ভেতরে লাশ লুকিয়ে রাখে। ধারণা করা হচ্ছে, সেখানে এক থেকে দুই দিন রাখার পর সুযোগ বুঝে ঘাতকরা বস্তাভর্তি অবস্থায় দোকান থেকে লাশ টেনে নিয়ে মার্কেটের ছাদে নিয়ে পাশেই ইছামতি নদীতে ফেলে দেয়।

ওসি মো. ইউনুচ আলী আরও জানান, শুক্রবার লাশ উদ্ধার করার পর মার্কেটের দ্বিতীয় তলায় দর্জিঘর দোকান থেকে লাশ বের করার সময় বস্তা টেনে নেওয়ার চিহ্ন ও ক্রেতাদের বসার জন্য তৈরি বড় আকৃতির বাক্সের ভেতরে রক্তের আলামত পাওয়া যায়। এরপরই নিশ্চিত হওয়া যায় ওই কাপড়ের দোকানের ভেতরেই লিমুকে হত্যা করা হয়েছে। তবে হত্যার আগে লিমুকে ধর্ষণ করা হয়েছে কি-না লাশে পচন ধরায় তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

তবে পরকীয়া প্রেমিক পলাতক থাকায় পুলিশ তাকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। তাকে গ্রেফতার করা গেলেই হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য কারণ ও রহস্য উদ্ঘাটন হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার শ্রীনগরের বাড়ৈখালী বাজারে চাঁন মার্কেটের পেছন থেকে বস্তাবন্দি অবস্থায় অর্ধগলিত লিমুর লাশ উদ্ধার করা হয়। বাড়ৈখালী গ্রামের মতিন বেপারীর মেয়ে লিমু স্থানীয় বাড়ৈখালী উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণি পর্যস্ত লেখাপড়া করেছে। এবার টেস্ট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়ায় পড়ালেখা বন্ধ রেখেছিল।

গত ২৮ আগস্ট বিকেলে জামাকাপড় কেনার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হয় লিমু। মেয়েকে কোথাও খুঁজে না পেয়ে বৃহস্পতিবার বাবা মতিন বেপারী শ্রীনগর থানায় জিডি করেন। পরদিন শুক্রবার বস্তাবন্দি তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

সমকাল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here