রাজশাহীতে ব্যবসায়ীকে নারী দিয়ে ব্ল্যাকমেল করে চাঁদাবাজি মামলায় কথিত সাংবাদিক সুজন আটক

Atok-Suzon-2.6.03.2020মাসুদ রানা রাব্বানী : রাজশাহীতে নারী দিয়ে ব্যবসায়ীর সাথে ছবি ও ভিডিও ধারন করে ফাঁসানোর ভয় দেখিয়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা চাঁদা দাবি ও নগদ এগারো হাজার টাকা চাঁদা নেওয়ার মামলায় মোঃ আব্দুর রাজ্জাক সুজন নামে এক কথিত সাংবাদিকে আটক করেছে পুলিশ। গত ২৫ মার্চ ২০২০ বুধবার রাতে তাকে আটক করে বোয়ালিয়া থানার এসআই মোঃ মোস্তফা ও সঙ্গীয় ফোর্স। আটককৃত মোঃ আব্দুর রাজ্জাক সুজন বোয়ালিয়া থানাধীন সপুরা মিয়াপাড়া এলাকার আব্দুল আজিজের ছেলে।

মামলার এজাহার এর বরাত দিয়ে এসআই মোঃ মোস্তফা জানান যে, গত ১৯ মার্চ ২০২০ তারিখে উপশহর এলাকার মৃত গজনফর আলীর ছেলে মোঃ মোকাদ্দাস আলী পলাশ নামের এক ব্যবসায়ী ওইদিনই বিকাল ৩ টার দিকে মিয়াপাড়া এলাকার মধ্য দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন। ওই সময় এক যুবক তার ভাই বাসায় অসুস্থ হয়ে বাসায় পড়ে আছে বলে ব্যবসায়ী মোকাদ্দাস আলীর কাছে সহযোগীতা চায়। সরল ব্যবসায়ী মোকাদ্দাস আলী সহযোগীতার জন্য সপুরা মিয়াপাড়া হোল্ডিং নং- ৭৬ বাড়ীতে প্রবেশ করলে ৬ জন যুবক ঘরের দরজা বন্ধ করে পাশে অপরিচিত একজন মেয়েকে দাঁড় করিয়ে ছবি তোলে এবং ভিডিও করে। এই সময় তারা ওই ব্যবসায়ীকে লাঠি দিয়ে পেটায় এবং বলে ৫০ হাজার টাকা না দিয়ে ভিডিও ও ছবি ইন্টারনেটে ভাইরাল করে দিব।

জীবন ও মান সম্মান রক্ষার্থে ব্যবসায়ী তার পকেটে থাকা নগদ ১১ হাজার টাকা দিয়ে কৌশলে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ওই দিন রাতে সোয়া ১১ টার দিকে ৬ জনকে আসামী করে বোয়ালিয়া থানায় ব্ল্যাকমেল ও চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ৭০। আসামীরা হলো- চন্দ্রিমা থানাধীন বড়বন গ্রাম এলাকার মৃত নবাব আলীর ছেলে আসিফ আহম্মেদ জেমস (৩৩), বোয়ালিয়া থানাধীন সপুরা মিয়াপাড়া এলাকার আব্দুর রউফ এর মেয়ে রুমি বেগম (৩২), শামসুল হকের মেয়ে নাসরিন জাহান সানজিদা (২০), সপুরা সুকানদিঘী এলাকার দুলাল (৩৭), মিতু (২০) এবং ছবি ও ভিডিও ধারনকারী কথিত সাংবাদিক সপুর মিয়াপাড়া এলাকার আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক সুজন।

এ ঘটনায় ১৯ মার্চ রাতেই সপুরা এলাকায় অভিযান চালিয়ে দুই নারীসহ তিনজনকে আটক করেন এসআই করিম ও সঙ্গীয় ফোর্স। গতকাল কথিত সাংবাদিক সুজনকে একই মামলায় আটক করা হয়। অপর দুই আসামী পলাতক রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে সুজনকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে বলেও জানান মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোস্তফা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here