লীগ পরিত্যক্ত, ফুটবলারদের কী হবে?

bff-bpl

সাঈদ ইবনে সামস: লীগ পরিত্যক্ত এটি পুরোনো খবর। কিন্তু লীগ পরিত্যক্ত হলেও ফুটবলারদের ভবিষ্যত নিয়ে কিছুই বলতে পারেনি বাফুফে। এই নিয়ে ফুটবলাররা হতাশ। নিজেদের ক্যারিয়ার নিয়ে শংকায় রয়েছে তারা। প্রায় ৬মাস আগেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ পরিত্যক্ত ঘোষনা করেছে বাফুফে। করোনা ভাইরাসের পরিস্থিতি ঠিক হওয়ার আগ পযর্ন্ত আর মাঠে ফিরছে না ফুটবল। লীগের সাথে সাথে স্বাধীনতা কাপও হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে বাফুফে। এই অবস্থায় নিয়ে ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তিত ক্লাব ফুটবলের ফুটবলাররা। বাংলাদেশে ফুটবলে এখনো সঠিকভাবে দলবদলের সংস্কৃতি গড়ে উঠেনি। দেশের ফুটবলে টোকেন মানি একটি পরিচিত নাম। এটি দিয়েই অনেক ফুটবলারদের দলে নেয় ক্লাবগুলো। এখানে নিয়মটি হচ্ছে, টোকেন মানি দিবে লীগ শেষে পুরো টাকা অথবা লীগ শুরু আগে ২০ভাগ টাকা দিবে চুক্তি এরপর লীগ শেষে আর ৮০ ভাগ টাকা দেওয়া হবে। তাও আবার তারকা তকমা পাওয়া ফুটবলারদের নিজেদের দলে নেওয়ার জন্য মৌসুমের শুরুতে অনেক ক্লাব টাকা দেয় কিন্তু সবাই পায় না। মাঝারি মানের দল গুলো সব টাকা দিয়ে খেলোয়াড় নিজেদের দলে নেয় না তারা। বর্তমান অবস্থায় অনুযায়ী ক্লাবগুলো কি খেলোয়াড়দের টাকা দিবে? এই নিয়েই চিন্তিত খেলোয়াড়রা। একটি বা দুইটি ক্লাব নিজেদের খেলোয়ারদের কিছু টাকা হলেও দিবে বলে শোনা গিয়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ ক্লাবের কোনো খবর নেই। লীগ বাতিলের জন্য তারা অনেক তৎপর ছিলেন কিন্তু বর্তমানে খেলোয়ারদের যখন তাদের দরকার তখন তাদের কোনো খবরই নেই। এখানে শুধু টাকার কথা নয়, জাতীয় দলের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা মনে করেন ফিটনেস ধরে রাখা অনেক কঠিন ফুটবলারদের জন্য। এতে ভুগতে হতে পারে জাতীয় দলকে। অন্যদিকে বাফুফের সাধারন সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ বলেছেন ক্লাব ও খেলোয়ারদের মতামত নিয়েই এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিবে বাফুফে। এখানে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে বাফুফে আসলেই কি খেলোয়ারদের কথা মাথায় রেখেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে? তারা চাইলে ক্লাবগুলোর সাথে যখন লীগের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিচ্ছিলো তখনই খেলোয়াড়দের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারতো। কিন্তু এখন খেলোয়াররা অন্ধকারে চলে গেলো। তারা সামনে কি হবে তাই নিয়েই চিন্তিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here