ঘাসিপুকুরপাড়ের রাস্তার বেহাল দশা: রাস্তার ব্লক সরে যাচ্ছে !

M1মোহাম্মদ সেলিম:

এ রাস্তাটি হচ্ছে ঘাসিপুকুরপাড়। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মহাকালী ইউনিয়নে এ রাস্তাটির অবস্থান। এ রাস্তার পূর্বপাশে অংশের ব্লকগুলো ইতোমধ্যে সড়ে গেছে। এর ফলে এ রাস্তায় যানবাহন চলাচলে অনেকটাই অসুবিধা দেখা দিয়েছে।

রাস্তার বেহাল দশার কারণে এখানে প্রতিদিনই কমবেশী ছোট বড় দুর্ঘটনা ঘটছে। বিষয়টি যাদের দেখার দায়িত্ব রয়েছে, তাঁরা রহস্যজনক কারণে নিরব ভূমিকা পালন করছেন। রাস্তাটি পশ্চিমপাড়ের তুলনায় পূর্বপাড়ে বেশী পরিমাণ ঢালু থাকার কারণে এখানে প্রতিদিন যানবাহন দুর্ঘটনায় পতিত হচ্ছে।

M2রাস্তাটি সমান তালে নির্মাণ করা হলে এমনটা হতো না বলে অনেকেই মনে করেন। এছাড়া পূর্বপাড়ে একটি বড়সরো খাল রয়েছে। খালের অংশে আগে গার্ড নির্মাণ করা হলে এমনটা নাও হতে পারতো। অনেকের অভিমত হচ্ছে, রাস্তায় যাতে বৃষ্টির পানি বা পশ্চিম পাশের অনেকের বাড়ির পানি না জমে এ কারণে পূর্বপাশের রাস্তাটির অংশ অনেকটাই ঢালু করে নির্মাণ করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনুচ্ছুক মধ্যে বয়সী এক ব্যক্তি জানান, যখন এখানে এ ব্লকগুলো বসানো হয়, তখন এখানকার এলাকাবাসী ব্লকের নীচে এঁটেল মাটি দেয়ার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করে ঠিকাদারকে। কিন্তু ঠিকাদার তাদের কথা না শুনে ব্লকের নীচে ভরট বালু ফেলে।

তাঁর কারণে আজ রাস্তার এ অবস্থা দেখা দিয়েছে। রাস্তাটি পশ্চিম দিকের চেয়ে পূর্বদিকে বেশী ঢালু। এর ফলে সাধারণ বৃষ্টি হলে পূর্বদিকেই পানি গড়িয়ে পরে। আর পানি গড়িয়ে পরার কারণেই ব্লকে থাকা বালু ধীরে ধীরে সরে যেতে যাকে। এর ফলে এ সময় বালি সরে গেলে সেখানে গর্তের সৃষ্টি হয়। এ সময় পূর্বে বসানো ব্লক গুলো ধীরে ধীরে সরে যায়।

paperপ্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রোজার আগের বৃষ্টিতে ব্লকের নীচে বালু ব্যাপক হারে সরে গেলে ব্লক গুলো এলোপাতারি সরে যায়। এর ফলে যে কোন সময় এ রাস্তার বিশাল একটি অংশ পাশের খালে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটি ঘটলে এ রাস্তায় যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণভাবেই বন্ধ হয়ে যাবে। তাতে এ পথে চলাচলকারী বিশাল অংশের মানুষ অসুবিধার মুখোমুখি হবেন।

এ রাস্তা দিয়ে পুরাতন কাচারীঘাট থেকে মাকহাটী ও আলদীতে নানা ধরণের পরিবহন চলাচল করে প্রতিদিন। কয়েক মাস আগে এ রাস্তার পাশে এ ব্লকগুলোর কাজ করানো হয়। অথচ খুব অল্প সময়ের মধ্যেই এ রাস্তায় বর্তমানে ভাঙ্গন দেখা দিলো।

এ রাস্তায় নানা অংশে ছোট বড় কাজ হচ্ছে। কিন্তু ঈদের ছুটিতে এ কাজের অংশের ব্যক্তিরা বাড়ি চলে যাওয়ায় অনেকগুলো কাজ এখন বন্ধ রয়েছে এ পথে। এ বিষয়ে এলাকাবাসী সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here