মালিপাথরে ড্রেন আছে, কিন্তু ঢাকনা নেই!

IMG_7383ড্রেন আছে। কিন্তু অনেক স্থানে ড্রেনের ঢাকনা নেই। এর ফলে অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের মালিপাথর গ্রামে। ধলেশ্বরী নদীর পাশে মুক্তারপুরের কমদরসুল হিমাগারে পাশ দিয়ে পশ্চিম উত্তর দিকে একটি রাস্তা গেছে।

সেই রাস্তাটি মালিপাথর গ্রামের পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান প্রয়াত আশোক আলীর বাড়ি হয়ে দয়াল বাজারের লিংক রোডে গিয়ে শেষ হয়েছে। এ রাস্তার পাশের বাড়ি ঘরের পানি নিস্কাশনের জন্য এ রাস্তার পাশে ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। ড্রেনের মাঝে মাঝে অনেক গুলো চৌবাচ্চা তৈরি করা হয়েছে।

সেখানে কিছু স্থানে ঢাকনা আছে। আর বেশিরভাগ স্থানে কোন ঢাকনা নেই। আর ঢাকনা বিহিন সে স্থানে অনেক পথচারী ও মিশুক ও অটো পরে গিয়ে অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। রাতের অন্ধকারে এ ধরণের ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটে থাকে বলে এখানকার বসতিরা জানিয়েছে।

তৎকালীন বিএনপি’র সরকারের সময় আ’লীগের সমর্থন নিয়ে পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদে প্রথম আ’লীগের মনোনয়নে ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এ আশোক আলী। সেই সময়টা আশোক আলীর জনপ্রিয়তা এখানে আকাশচুম্বি ছিলো।

আশোক আলীর মৃত্যুর পর এখানে আরেক জনপ্রিয় ব্যাক্তির আর্বিভাব ঘটে তিনি হচ্ছেন আ’লীগ নেতা বশির মাদবর। তাকে এই মুক্তারপুরে দিনে দুপুরে সন্ত্রাসিরা গুলি কওে হত্যা করে।

বিএনপি’র অধ্যশিত এলাকায় প্রয়াত দুইজন ব্যক্তি কট্টর আ’লীগ নেতা হিসেবে সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা ছিলেন তিনি।

তাদের মৃত্যুর পর দীর্ঘ বছর ধরে এখানে বিএনপি নেতৃত্ব দিয়েছে। মালিপাথরে আশোক আলীর বাড়ি থাকায় সেখানে বিএনপির ঐ সময়ের মধ্যে এ রাস্তাটি আধা কাঁচা অবস্থায় ছিলো। আশোক আলীর বাড়ির কারণে এখানে বিএনপি তেমনটি উন্নয়ন কাজ করেননি বলে অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে মালিপাথরে আ’লীগের সবচেয়ে বেশি ভোট ব্যাংক থাকায় বিএনপি’র সেই সময়টিতে এ রাস্তাটি মেরামত করা হয়নি বলে একাধিক অভিযোগ উঠেছে।

বর্তমানে আ’লীগের সরকারের এই সময়ে এ রাস্তাটি পিচের কাপেটিং করা হয়েছে। তবে এখানে ড্রেনের ঢাকনা ঝুলিয়ে রাখা সেই বিএনপি’র সময়ের ভুতের আছরের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে এখানকার মানুষদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here