মুন্সীগঞ্জ-শ্রীনগর সড়কে একাধিক পয়েন্টে বেইলি সেতু পরিত্যক্ত অবস্থায় রয়েছে!

1মোহাম্মদ সেলিম ও তোফাজ্জ্বল হোসেন:

মুন্সীগঞ্জ থেকে শ্রীনগরের সড়ক পথের একাধিক পয়েন্টে বেইলি সেতু পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। কোথাও কোথাও আবার এর যন্ত্রাংশ খোলা আকাশের নিচে অরক্ষিত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। এর ফলে এর যন্ত্রাংশ কোন না কোনভাবে বর্তমানে চুরি হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ বিষয়টি যাদের দেখার দায় দায়িত্ব রয়েছে তারা ঠিকভাবে এটির নজরধারী করছে না বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। তার ফলে এখানে সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ এখন জলে যাবার জোগাড় হয়েছে। সরকারি অর্থ দরিয়ায় ঢাল এ ধরণের অভিমত প্রকাশ করছেন অনেকেই।

এ পথের সড়কে আগে কোথাও কোথাও বেইলি সেতু ছিল। পরে সেখানে পাকা সেতু নির্মাণ করে কর্তৃপক্ষ। আবার কোথাও কোথাও পাকা সেতু নির্মাণ করার সময় বিকল্প পথ হিসেবে সেখানে বেইলি সেতু নির্মাণ করা হয়। কিন্তু পাকা সেতু নির্মাণের পরেও সেখান থেকে বেইলি সেতু সরিয়ে নেয়া হয়নি আজোও।

2তাতে পাকা সেতু চালু হওয়ার পর এ বেইলি সেতুর আর এখানে প্রয়োজন নেই বলে অনেকেই মনে করছেন। তবে কেন সেখান থেকে বেইলি সেতু সরিয়ে নেয়া হলো না। তা নিয়ে এখানে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে অনকের মনে। এ সড়ক পথে পাকা সেতু চালুর পর থেকে বেইলি সেতু পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। সেখানে বেইলি সেতুর অনেক যন্ত্রাংশ আবার রাস্তার পাড়ে স্তুপ করে রাখা হয়েছে।

আবার কোন কোন বেইলি সেতুর এক প্রান্তের অংশ খুলে ফেলা হয়েছে। তবে সেখানে কোন যন্ত্রাংশের স্তুপ নেই। এক্ষেত্রে অনেকেই মনে করছেন এর যন্ত্রাংশ কে বা কাহারা চুরি করে নিয়ে যেতে পারে বলে তারা আশংকা করছেন। খুলে ফেলা বেইলি সেতুর অন্য প্রান্ত থেকে কেউ যদি ভুলক্রমে যানবাহন নিয়ে উঠে পরে তবে দুর্ঘটনার আশংকা রয়েছে সেই ক্ষেত্রে। তখন এর দায় কে নিবে। এ বিষয়টি অনেক কে ভাবিয়ে তুলেছে।

শ্রীনগর থেকে মুন্সীগঞ্জে আসার পথে শ্রীনগর উপজেলার আটপাড়া ইউনিয়নের আটপাড়া ও বেলতলিতে এমন দৃশ্য সহসাই চোখে পড়বে। এরপর সিরাজদিখান উপজেলার কোলা ইউনিয়নের বউবাজার ও মালখানগর ইউনিয়নের মালখানগর চৌরাস্তার পর এমন দৃশ্য চোখে পড়বে। যেখানে সড়ক পথে বেইলি সেতুর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে সেখানে এ পরিত্যক্ত সেতুগুলো নিয়ে কর্তৃপক্ষ অনাসায়ে কাজ করতে পারে।

এমনভাবে সেতু ফেলে রাখা ঠিক না বলে অনেকেই মনে করছেন। আমাদের এখানে অনেক যায়গাতে একটু সেতু অভাবে বছরের পর বছর মানুষ কতো কষ্টে যাতায়াত করছে। অথচ এখানে সেতু পড়ে রয়েছে। কেউ এ সেতু গুলো বর্তমানে ব্যবহার করছে না।

আর এ সেতু ব্যবহার না করার ফলে বছরের পর বছর সেতুর যন্ত্রাংশ এখন মরিচা পড়তে শুরু করেছে। এ বিষয়টি এলাকাবাসীরা সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here