পদ হারানো পদ থেকে জগলুল হাওলাদার ভুতু’র পদত্যাগে টঙ্গীবাড়ীতে ধুম্মজালের সৃষ্টি

125050316_1766867786801405_8775174156895801995_nপদ হারানো একই পদ থেকে জগলুল হাওলাদার ভুতু’র পদত্যাগে টঙ্গীবাড়ীতে ধুম্মজালের সৃষ্টি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ জেলা আ’লীগের সিনিয়র নেতারা বলেন, যার কোন পদ নেই, সে আবার পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন তা হাস্যকর বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে একাধিক নেতা অভিমত প্রকাশ করেছেন। তারা

জানান, গত ২৩ ফেব্রুয়ারিতে জেলার বর্ধিত সভা থেকে ভুতুসহ একাধিক নেতাকে তাদের স্ব স্ব পদ থেকে অব্যহতি দেয়া হয়।

সেই হিসেবে তারা আর কোনভাবেই ঐ তারিখের পর থেকে নিজ নিজ পদ পদবিতে আর নেই বলে তারা আরো অভিমত প্রকাশ করেন। তাতে জগলুল হালদার ভুতু গত ১০ নভেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে যে পদত্যাগ পত্র জমা

দিয়েছেন তা এই সময়কে কোনভাবেই সাপোর্ট করে না বলে শোনা যাচ্ছে। এই বিষয়টি বর্ধিত সভাকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয়া হয়েছে বলে অনেকেই মনে করছেন।

জানা যায়, জগলুল হালদার ভূতুসহ মুন্সীগঞ্জ জেলা আ’লীগের নৌকা বিরোধী বিদ্রোহী একাধিক প্রার্থী দলীয় পদ হারিয়েছেন গত ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে। গত ২৩ ফেব্রুয়ারিতে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আ’লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বর্ধিত সভায় জানানো হয় এই সিন্ধান্ত। বর্ধিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আ’লীগের সহ সভাপতি নূরুল আলম চৌধুরী ।

মুন্সীগঞ্জ জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শেখ লুৎফর রহমানের সঞ্চালনায় বর্ধিত সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় আ’লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক ও মুন্সীগঞ্জ ৩ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মৃনাল কান্তি দাস, ঢাকা বিভাগীয় আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি। মির্জা আজম তার বক্তেব্যে জানান,

যারা বিগত নির্বাচনে নৌকার র্প্রার্থী বিরোধীতা করে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, তারা স্বপদে আর থাকতে পারবনে না। তবে তাদেরকে বহিস্কার করা হয়নি, পদ থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে। এ বর্ধিত সভার পর থেকে বিদ্রোহীরা নিজ পদে বহাল থাকতে পারবেন না। তাদেরকে পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হলো। অব্যাহতি প্রাপ্তরা প্রাথমিক সদস্য হিসাবে থাকতে পারবে।

বর্তমানে যিনি সহ-সভাপতি পদে আছেন তিনি সভাপতির দায়িত্ব পালন করবে। এসময় বর্ধিত সভায় উপস্থিত থাকা টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জগলুল হাওলাদার ভুতু এবং লিপু ফকিরকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বর্ধিত সভায় উপস্থিত একাধিক সদস্য।

বর্ধিত সভা থেকে মুন্সীগঞ্জ জেলায় অব্যহতি প্রাপ্তরা হলেন, টঙ্গীবাড়ী উপজেলা আ’লীগের সভাপতি জগলুল হাওলাদার ভুতু, লৌহজং উপজেলা আ’লীগ নেতা লিপু ফকির, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক সামসুল কবির মাষ্টার,

মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা, বেতকা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলম সিকদারসহ নৌকা বিরোধী বিদ্রোহীরা অনেকেই। যারা বিগত দিনে নৌকার বিরোধীতা করে উপজেলা এবং ইউপি নির্বাচনে অংশ নিয়েছে তাদেরকে আ’লীগের স্ব স্ব পদ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তারা এখন থেকে সাধারণ সদস্য হিসাবে বিবেচিত হবে।

বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে নৌকা বিরোধী বিদ্রোহীদের স্ব স্ব পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার ঘোষণা দেন। এক্ষেত্রে তারা পদ বহাল থাকতে পারবেন না। উক্ত পদে দলীয় নির্দেশনা অনুযায়ী শুন্য পদে সহ-সভাপতি এবং যুগ্ম সম্পাদকরা দলীয় কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here