মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে ভোটারদের মন জোগাতে প্রার্থীরা নানা কৌশলে মরিয়া

6মোহাম্মদ সেলিম ও তোফাজ্জ্বল হোসেন:

আগামী ৩০ জানুয়ারি মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচনে মেয়র পদে ৬ প্রার্থী অংশ গ্রহণ করেছে। তাদেও পক্ষে প্রচার প্রচারণা চলছে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে। এছাড়া ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে একাধিক নারী ও পুরুষ প্রার্থীরা ভোটের লড়াইয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

আর উক্ত নির্বাচন কে ঘিরে বইছে ভোটের হাওয়া। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই যেন বাড়ছে উত্তাপ। কোথাও কোথাও আবার প্রার্থীদের মাঝে দেখা যাচ্ছে সহিংসতা। একই দলের সমর্থকদের মধ্যে ভোট নিয়ে দেখা যাচ্ছে নানা বিরোধ। করোনা ও প্রচন্ড শীতকে উপেক্ষা করে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা ভোটের ময়দান মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন নিজের পক্ষে ভোট পাওয়ার লক্ষ্যে।

ভোটারদের ভোট পেতে ভোট প্রার্থনা করে যাচ্ছেন ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে। এবারের নির্বাচনে একাধিক পদে বেশি পরিমাণ প্রার্থী থাকায় ভোটারদের কদর বেড়েছে নানাভাবে। একই দিন এক প্রার্থীর পক্ষে একাধিকবার ভোট প্রার্থনায় ছুটে আসছেন প্রার্থীর সমর্থকরা ভোটারদের কাছে। এছাড়া ঐসব প্রার্থীদের পক্ষ্যে প্রচারণায় রয়েছে মাইকিংয়ের কান জালাপালা। এতে ভোটাররা অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।

কোন প্রার্থী ও সমর্থকরা ভোটারের কাছে তার পক্ষে সমর্থন আদায়ে জোর আকুতি মিনতিও জানাচ্ছে। অনেকে আবার দাবি করছেন যে, অনেক বছর ধরে পুরাতনের ভোট দিয়েছেন, এবার না হয় নতুনদের ভোট দিয়ে সেবা করার সুযোগ দিন।

এদিকে তারা সেই সাথে দিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদেরর নানা নানা রকমের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। প্রধান সড়কে, রাস্তার মোড়ে, অলি গলির সকল সড়কেই প্রচারনায় ছেয়ে গেছে ব্যানার ও ফেসটুন ও পোস্টারে। সেই সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ও প্রচারণায় চালিয়ে যাচ্ছেন প্রার্থীরা সমান তালে।

কিন্তু এত কিছুর ভিড়ে ভোটাররা কোন দিকে সেটাই এখন বড় প্রশ্ন? মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে সব প্রার্থীরাই তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করার জন্য ভোটারদের দ্বার প্রান্তে হাজিরা দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। কিন্তু পুরনো সময়ে কোন প্রার্থী ভোটারদের জন্য কি করেছেন সেটার হিসাব নিকাশ ও করছেন ভোটাররা। সেই সাথে যোগ্যতা, জনপ্রিয়তা, এবং দুঃসময়ে পাশে থাকা প্রার্থীদের জয়ে সচেতন নতুন ও পুরনো ভোটাররা।

প্রার্থীরা নিজ নিজ ওয়ার্ডে ওঠান বৈঠক, জনসংযোগ মাইকিং সহ বিভিন্ন উপায়ে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন নিরলসভাবে। তবে এবারের ভোটে প্রার্থীরা বেশির ভাগই তরুন। ফলে তরুন ভোটার ও নতুন ভোটারদের কাছে টানতে নানা ধরণের কলাকৌশল অবলম্বন করছে প্রার্থীরা। দোয়া চাওয়ার পাশাপাশি আগামিতে নির্বাচিত হলে নানা ধরনের সুযোগ সুবিধা দেওয়ার কথা শোনা যাচ্ছে তাদের মুখে মুখে।

চলতি ২০২১ সালের আগামী ৩০ জানুয়ারী (শনিবার) বার ব্যালটের মাধ্যমে উক্ত নির্বাচন সম্পন্ন হবে। ব্যালট পেপার পদ্ধতি ভোটারদের কাছে পুরনো হলেও অনেকের কাছে তা একে বারে নতুন। সুষ্ঠভাবে যার যার ভোট দিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ভোটারদের মধ্যে রয়েছে শঙ্কাও। প্রতিটি ওয়ার্ডে হিড়িক পড়েছে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীদের। ফলে ভোটারদের মন জয় করার জন্য নির্গুম রাত কাটাচ্ছেন প্রার্থীরা।

তবে অভিযোগ ওঠেছে প্রার্থীরা ভোট ক্রয়ে টাকা ছিটাচ্ছে বিভিন্ন এলাকায়। রাতের আধারে কে বা কারা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে ভোটারদের নিয়ে গোপনে আলাপ আলোচনা সহ টাকা লেনদেন করছে। এমনটাই অভিযোগ করছেন স্থানীয়রা। সঠিক ভাবে এর তদারকি ও নজরদারি রাখা উচিৎ বলে মনে করেন সাধারণ ভোটাররা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here