মুন্সীগঞ্জের পঞ্চসারে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ: অতপর গুলির খোসা উদ্ধার

185914187_335164944617521_6761015296115769294_nনিজস্ব প্রতিবেদক: মুন্সীগঞ্জে চাঁদা না দেয়ায় পঞ্চসার ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি ও ইউপি সদস্য জাহিদ হাসানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাস্থলে গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে আরো অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে গুলির খোসা উদ্ধার করেছে।

এ ঘটনায় সেই সময়ে হাসিবুল হাসান শান্ত (২৫), শিমুল তালুকদার(৩০) ও মনির হোসেন (৪৮)সহ ৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বুধবার বিকালে শহরের উপকন্ঠে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের জিয়সতলায় এই ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, মনির হোসেন নামের এক ব্যক্তি সরদার পাড়া এলাকার আবুল হোসেনের থেকে ১০ শতাংশ জমি ৩৫ লাখ টাকায় ক্রয় করেন। পরে ১০ লাখ ৬০ হাজার টাকা পরিশোধ করে একটি বায়না দলিল করেন। সেই জমিতে স্থাপনা নির্মাণ করতে গেলে বুধবার বিকালে পঞ্চসার ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি বাঁধা দেয়।

এ সময় তার দলবল মনির হোসেনসহ এর লোকজনের হামলা চালায়। এ সময় আতংক সৃষ্টির লক্ষ্যে বাড়ি ঘরে গুলি বর্ষণ করে। এসময় হামলা কারীদের বাঁধা দিতে গেলে মনির হোসেন ও তার ছেলেসহ কয়েকজনকে মারধর করে হামলাকারীরা। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

হামলার শিকার মনির হোসেন বলেন, ৫ বছর আগে জমি বায়না দলিল করেছি। পুরো টাকা পরিশোধ করে জমিটি লিখে নেয়ার কথা। কিন্তু হঠাৎ করে বুধবার পঞ্চসার ইউপি সদস্য ও যুবলীগ সভাপতি তার সন্ত্রাসীরা

দলবল নিয়ে জমিতে এসে আমার কাছ থেকে চাঁদা দাবী করেন। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে এলোপাথারি গুলি বর্ষণ করে আমাদের মারধর করে ৫ জনকে আহত করেছে।
এঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান মনির।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ইউপি সদস্য ও যুবলীগ সভাপতি জাহিদ হাসান বলেন, ঘটনাটি সত্য নয় আমি ঘটনার সাথে জড়িত না। আমি পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়েছি। এটি একটি পরিকল্পিত ঘটনা আগামী ইউপি নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান প্রার্থীর ঘোষণা দেয়ায় আমাকে ফাঁসানোর জন্য এসব করা হচ্ছে।

প্রাথমিক ভাবে ঘটনাস্থলে জাহিদ হোসেন থাকার প্রমান পাওয়া গেছে জানিয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানা অফিসার ইনচার্জ আবু বকর সিদ্দিক বলেন, ঘটনাস্থল থেকে দুটি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত অভিযোগ পাইনি। তবে গুলির বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here